চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

বর্ধমানে ব্যারেটো সঙ্গে মোহনবাগান সচিব দেবাশিষ দত্ত থেকে সংগ্রাম মুখার্জী


 

বর্ধমানে ব্যারেটো সঙ্গে মোহনবাগান সচিব দেবাশিষ দত্ত থেকে সংগ্রাম মুখার্জী 




Sangbad Prabhati, 18 February 2024

ডিজিটাল ডেস্ক রিপোর্ট, সংবাদ প্রভাতী : বর্ধমানে ঝটিকা সফর করলেন ব্রাজীলিয় ফুটবলার তথা মোহনবাগানের প্রাক্তন ফুটবলার ব্যারেটো৷ সঙ্গে ছিলেন ভারতের প্রাক্তন গোলরক্ষক সংগ্রাম মুখার্জী সহ মোহনবাগান সচিব দেবাশিষ দত্ত৷ উল্লেখ্য রিয়েল বুল ফুটবল অনুশীলন কেন্দ্রের বর্ষপূর্তি উপলক্ষে বর্ধমানের এগ্রিকালচার ফার্ম ফুটবল ময়দানে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এসেছিলেন ব্যারেটো সহ অন্যান্য অতিথিরা। রবিবার প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন ব্যারেটো সহ অতিথিরা।

এই অনুষ্ঠানেই সাংবাদিকদের করা প্রশ্নের উত্তরে মোহনবাগান সচিব দেবাশিষ দত্ত জানান, ব্যারেটো নামটা আমারই দেওয়া। মঞ্চে তখন পাশে বসে ব্রাজীলিয় ফুটবলার তথা মোহনবাগানের ঘরের ছেলে হোসে র‍্যামিরেজ মার্সিও ব্যারেটো, ভারতীয় দলের প্রাক্তন গোল রক্ষক সংগ্রাম মুখার্জী ৷ ব্যারেটো নামটা কি ভাবে এলো তা জানতে চাওয়া হলে ব্যারেটো হেসে দেবাশিষ দত্ত এর সঙ্গে কথা বলতে বলেন৷ মোহনবাগান সচিব দেবাশিষ দত্ত জানান, ওর নাম মার্সিও, কিন্তু মার্সিও নামে অনেক ফুটবলার ভারতে খেলে গেছেন৷ দেখলাম ওর নামের মধ্যে ব্যারেটো শব্দটা রয়েছে। তাই ওর নামকে মনে ধরে রাখার জন্য তিনি ব্যারেটো নাম দিয়েছেন৷ সেই থেকেই ব্যারোটো বলেই জনপ্রিয়তা এই ফুটবলার এর৷ মোহনবাগান প্রসঙ্গে দেবাশিষ দত্ত বলেন, মোহনাবাগানের নামে একটা স্পোর্টস কমপ্লেক্স বা মোহনবাগান ভিলেজ গড়তে পারলে হয়তো অনেকটাই ভালো হতো। একই সঙ্গে ফুটবল সহ অন্য খেলা গুলো সেখানে চলতে পারে৷ বর্ধমানে মোহনবাগান সমর্থক যে প্রচুর তা মেনে নিয়ে মোহনবাগান সচিব দেবাশিষ দত্ত জানালেন, এই জন্যই দুর্গাপুরে হয়েছে মোহন বাগানের নামে রাস্তা৷  

এদিকে বর্ধমানের ক্ষুদে ফুটবলারদের সামনে আসতে পেরে হোসে র‍্যামিরেজ মার্সিও ব্যারেটো খুশি বলে জানালেন। দেশের প্রাক্তন গোল রক্ষক সংগ্রাম মুখার্জী কে জানতে চাওয়া হয় বাঙ্গালি গোলকিপাররাই মোটামুটি দেশের বিভিন্ন ক্লাবে খেলছে, উত্তরে মৃদু হেসে সংগ্রাম জানান, আমাদের বাংলার মাটিই হয়ত এই ভাবে আমাদের তৈরি করেছে ৷ আই এস এল নিয়ে প্রশ্ন করা হলে ব্যারেটো স্পিকটি নট হয়ে থাকলেন৷

রবিবার রিয়েল বুল ফুটবল অনুশীলন কেন্দ্রের বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে অন্যান্য অতিথিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বর্ধমান উন্নয়ন সংস্থার চেয়ারম্যান কাকলি তা গুপ্ত, বিশিষ্ট সমাজসেবী সনৎ নন্দী, ডাঃ মৃণাল কান্তি বিশ্বাস, লালবাবা রাইস তথা ভদ্রেশ্বর এ্যাগ্রো প্রোডাক্ট এর কর্ণধার পার্থ নন্দী, বর্ধমান ১ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি দুর্গা রাজমল্ল, রায়ান গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান কার্তিক বাগ সহ অন্যান্যরা। সমগ্র অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন বিশিষ্ট বাচিক শিল্পী অনির্বাণ বিশ্বাস।

এদিন রিয়েল বুল ফুটবল অনুশীলন কেন্দ্রের বর্ষপূর্তি উপলক্ষে মেয়েদের একটি খেলা এবং অনুশীলন কেন্দ্রের ফুটবল শিক্ষার্থী ছেলেদের একটি খেলা অনুষ্ঠিত হয়।