চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

২৯ লক্ষ টাকার বেচাকেনায় নির্বিঘ্নে সম্পন্ন সপ্তম পূর্ব বর্ধমান জেলা বইমেলা


 

২৯ লক্ষ টাকার বেচাকেনায় নির্বিঘ্নে সম্পন্ন সপ্তম পূর্ব বর্ধমান জেলা বইমেলা




Atanu Hazra
Sangbad Prabhati, 18 January 2024

অতনু হাজরা, জামালপুর : নির্বিঘ্নেই শেষ হলো সাতদিন ব্যাপী আয়োজিত পূর্ব বর্ধমান জেলা বইমেলা। গত ১১ জানুয়ারি পূর্ব বর্ধমানের জামালপুরে শুরু হয় সপ্তম পূর্ব বর্ধমান জেলা বই মেলা। যার উদ্বোধন করেছিলেন রাজ্যের গ্রন্থাগার মন্ত্রী সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী। ছিলেন রাজ্যের পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন দপ্তরের মন্ত্রী প্রদীপ মজুমদার ও আকাশবাণীর গীতিকার, পশ্চিমবঙ্গ বাংলা অ্যাকাডেমি পুরস্কারপ্রাপ্ত এবং রাষ্ট্রীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত শিশু সাহিত্যিক সুনীতি মুখার্জী, ছিলেন ডি এল ও নির্মাল্য অধিকারী, তথ্য সংস্কৃতি আধিকারিক রামশঙ্কর মন্ডল। 

সাতদিন ধরে ব্লকের সমস্ত হাই স্কুল অনেক প্রাইমারি স্কুলের ছাত্র ছাত্রীরা বই মেলায় আসে। স্বাধীনতার পর জামালপুরে এই প্রথম বইমেলা ঘিরে সাধারণ মানুষের আগ্রহ ছিল প্রবল। প্রচুর মানুষ প্রতিদিন ভিড় জমিয়েছেন জামালপুর নেতাজি অ্যাথেলেটিক ক্লাবের মাঠে। সাতদিন ধরেই ছিল নানা অনুষ্ঠান।

মেলাটি কে সাফল্যমন্ডিত করতে বিশেষ ভূমিকা নেন জামালপুরের বিধায়ক অলক কুমার মাঝি, পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ মেহেমুদ খান, বিডিও পার্থ সারথী দে, পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি পূর্ণিমা মালিক, সহ সভাপতি ভূতনাথ মালিক, জামালপুর স্থানীয় লাইব্রেরির সম্পাদক অরূপ মল্লিক, সভাপতি দিব্যেন্দু চ্যাটার্জী, ব্লকের অফিসার দেবব্রত চৌধুরী, শিক্ষক দেবব্রত মুখোপাধ্যায় সহ অনেকেই। জেলা লাইব্রেরী থেকে মেলাটি কে সফল করার জন্য সাতদিন ধরে নিরলস পরিশ্রম করে গেছেন মিত্রা কোলে, হাসনাত জামান সহ অন্যান্যরা। ব্লকের স্কুল গুলির মধ্যে গোপাল পুর মুক্তকেশি বিদ্যালয়, পর্বতপুর গার্লস, ঝাপানডাঙ্গা পরেশ নাথ বিদ্যমন্দিরের শিক্ষক ও ছাত্র ছাত্রীরা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করে। 

শেষ দিন বেরুগ্রাম আচার্য্য গিরিশ চন্দ্র বসু বিদ্যাপীঠের ছাত্র ছাত্রীরা একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করে তাদের শিক্ষিকা সোমা হালদারের নির্দেশনায়। জামালপুর মহাবিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীরাও এই বইমেলায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করে। কবিতা আবৃত্তি, ক্যুইজ ও বসে আঁকো প্রতিযোগিতায় ব্লকের বিভিন্ন স্কুলের ছাত্র ছাত্রীরা অংশ গ্রহণ করে। এছাড়াও নাটক, গান, অর্কেস্ট্রা জেলা তথ্য ও সংস্কৃতি দপ্তরের পক্ষ থেকে প্রতিদিনই ঝুমুর গান, রাইবেশে, ছৌ নাচ, বাউল গান পরিবেশিত হয়। স্থানীয় দুই গানের শিল্পী বিপ্লব ব্যানার্জী ও তাপস চক্রবর্তী সুন্দর সঙ্গীত পরিবেশন করেন। জেলা লাইব্রেরির পক্ষ থেকে জানানো হয় প্রায় ঊনত্রিশ লক্ষ টাকার মত বই এই সপ্তম বইমেলায় বিক্রি হয়েছে। তবে প্রথম বইমেলা আয়োজনের সুযোগ পেয়ে জামালপুর সফল ভাবেই সম্পন্ন করলো।