চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

বর্ধমানের প্রশাসনিক সভা থেকে সাড়ে পাঁচ লক্ষ মানুষের কাছে পরিষেবা পৌঁছে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়


 

বর্ধমানের প্রশাসনিক সভা থেকে সাড়ে পাঁচ লক্ষ মানুষের কাছে পরিষেবা পৌঁছে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় 




Atanu Hazra
Sangbad Prabhati, 24 January 2024

অতনু হাজরা, বর্ধমান : পূর্ব বর্ধমান জেলার শহর বর্ধমানে গোদার মাঠে পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমানের প্রশাসনিক সভা করলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। আজকের এই সভা থেকেই বোতাম টিপে ৫ লক্ষ ৬০ হাজার মানুষের কাছে তাঁদের প্রাপ্য ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে প্রদান করলেন। এর ফলে পূর্ব বর্ধমানের অন্তত ৪ লক্ষ এবং পশ্চিম বর্ধমানের অন্তত ১ লক্ষ ৬০ হাজার উপভোক্তা বিভিন্ন সরকারি সুবিধা লাভ করবেন। একই সঙ্গে একগুচ্ছ প্রকল্পের শিলান্যাস ও উদ্বোধন করেন। যার মধ্যে বর্ধমান আরামবাগ রাস্তা, রায়না থেকে জামালপুর রাস্তা, বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজের অক্সিজেন মেনিফোল্ড বিল্ডিং, কাটোয়া হাসপাতালে ১০০ শয্যা বিশিষ্ট কোভিড হাসপাতাল, বর্ধমানে নব নির্মিত প্রশাসনিক ভবন ইত্যাদি। এদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর প্রশাসনিক সভায় রাজ্যের মন্ত্রীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অরূপ বিশ্বাস, মলয় ঘটক, প্রদীপ মজুমদার ও স্বপন দেবনাথ। এছাড়াও ছিলেন রাজ্যের মুখ্যসচিব, দুই জেলার সভাধিপতি সহ অন্যান্যরা।

মুখ্যমন্ত্রীর সভায় মানুষের ভিড় উপচে পড়ে। জেলার প্রতিটি ব্লক থেকে প্রচুর মানুষ আসেন মুখ্যমন্ত্রীকে দেখতে ও তাঁর কথা শুনতে।জামালপুর ব্লকের তৃণমূলের ব্লক সভাপতি মেহেমুদ খান জানান, তাঁর ব্লক থেকে কমকরে ৭০ টি শুধু বাস এসেছে। এছাড়া অন্য গাড়ি তো আছেই। তবে সবচেয়ে বেশি চোখে পড়েছে তাঁর সাধের কন্যাশ্রী মেয়েদের। প্রচুর সংখ্যায় কন্যাশ্রী মেয়েরা উপস্থিত ছিল আজকের সভায়। তারা সারাক্ষণ মুখ্যমন্ত্রীকে দেখে গলা ফাটাতে থাকে। 

যতবার মুখ্যমন্ত্রী তাদের নাম করেছেন তারা উল্লাসে ফেটে পড়েছে। মঞ্চ থেকেই তিনি ৫০ জনের হাতে সরাসরি পরিষেবা তুলে দেন। যার মধ্যে স্বাস্থ্য সাথী, কন্যাশ্রী, ঐক্যশ্রী, কৃষক বন্ধু, স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড, জয় জোহার, রূপশ্রী কন্যাদের তিনি নিজে হাতে বেনারসী উপহার দেন। 

 তিনি মঞ্চ থেকে কেন্দ্র সরকারের তীব্র সমালোচনা করেন। তিনি বলেন যাঁরা রামমন্দির প্রতিষ্ঠার দিন ছুটি দিতে পারে তাঁরা নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মদিনে ছুটি দিতে পারেন না। এটা লজ্জার। কেন্দ্রের সরকার ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করছেন। তিনি এরই সঙ্গে রাজ্য সরকারের সাফল্যের খতিয়ান তুলে ধরেন। 

তিনি অভিযোগ করেন রাজ্যে শিক্ষক নিয়োগ বাম, কংগ্রেস ও বিজেপি কেসের নামে চক্রান্ত করে আটকে রেখেছেন। তিনি কোর্টের কাছে আবেদন রেখেছেন যাতে নতুন করে বেকার ছেলে মেয়েদের জন্য শিক্ষক নিয়োগ তাঁরা করতে পারেন সেটা যেন কোর্ট দেখেন।

এদিকে বর্ধমানে গোদার মাঠে প্রশাসনিক সভা শেষ হবার পর আবহাওয়া খারাপ থাকার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হেলিকপ্টারে না গিয়ে সড়ক পথে কলকাতা ফেরেন। কিন্তু সভাস্থল থেকে বেরিয়ে হাইওয়ে তে ওঠার মুখে মুখ্যমন্ত্রীর গাড়ি জোরে ব্রেক করলে জানালার কাঁচে মুখ্যমন্ত্রীর মাথায় চোট লাগে। সাথে সাথে প্রশাসনিক কর্তারা ছুটে যান। যদিও মুখ্যমন্ত্রী গাড়ি থেকে নামেন নি। তাঁর গাড়ি কলকাতার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়।