Scrooling

নন্দীগ্রামে বিজেপি সমর্থক খুনে রিপোর্ট চাইলো কমিশন # ১৮ তম লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল জানা যাবে ৪ জুন

Duyare Sarkar, a ray of hope and prosperity মানুষের জীবন থেকে অন্ধকার দূর করে আশা ও সমৃদ্ধির রশ্মি নিয়ে আসছে দুয়ারে সরকার


 

Duyare Sarkar, a ray of hope and prosperity

মানুষের জীবন থেকে অন্ধকার দূর করে আশা ও সমৃদ্ধির রশ্মি নিয়ে আসছে দুয়ারে সরকার


Jagannath Bhoumick
Sangbad Prabhati, 3 April 2023

জগন্নাথ ভৌমিক, পূর্ব বর্ধমান : অন্ধকার থেকে আলোয় ফেরালো মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর স্বপ্নের প্রকল্প দুয়ারে সরকার। না কোন গল্প কথা নয়। প্রত্যন্ত গ্রামের গৃহবধূদের এমনই কাহিনী এখন সর্বত্র আলোচনার বিষয়। সোমবার বিকেলে পূর্ব বর্ধমান জেলা শাসকের কনফারেন্স হলে এক সাংবাদিক সম্মেলনে সেই বিষয়ে জানালেন জেলা শাসক প্রিয়াঙ্কা সিংলা। উপস্থিত ছিলেন জেলা তথ্য ও সংস্কৃতি আধিকারিক রাম শংকর মন্ডল।

জেলা শাসক প্রিয়াঙ্কা সিংলা জানান, গলসি ১ ব্লকের রামগোপালপুর এলাকার বাসিন্দা কল্পনা হাজরা। একজন গৃহকর্মী হিসাবে কাজ করেন এবং সারাদিন কঠোর পরিশ্রম করে তার পরিবারের জন্য রুটি রোজগার করেন। তিনি তার পরিবারের সাথে একটি ছোট বাড়িতে থাকেন এবং সেখানে কোনও বৈদ্যুতিক সংযোগ ছিল না। আসলে আর্থিক সঙ্কটের কারণে নতুন বৈদ্যুতিক সংযোগের জন্য আবেদন করার সাহস পাননি। বিষয়টি গলসি-১ এর বিডিও, বিদ্যুৎ দপ্তরের বুদবুদ স্টেশন ম্যানেজার, সিসিসি, ডব্লিউবিএসইডিসিএল-এর নজরে আসে। ষষ্ঠ পর্যায়ে দুয়ারে সরকার শিবির হয়েছে স্থানীয় রামগোপালপুর হাইস্কুলে। নতুন বৈদ্যুতিক সংযোগের আবেদনপত্র জমা দেওয়ার জন্য কল্পনা হাজরাকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল। দুয়ারে সরকার শিবিরে তিনি নতুন বৈদ্যুতিক সংযোগের জন্য আবেদনপত্র জমা দেন এবং ব্লক প্রশাসন এবং WBSEDCL কর্তৃপক্ষের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় একই দিনে তার আবেদনটি অনুমোদিত হয় এবং তারপর ডাব্লুবিএসইডিসিএল কর্তৃপক্ষ তার বাড়িতে চলে যায় এবং সেখানে একটি নতুন বৈদ্যুতিক মিটার স্থাপন করে নতুন বৈদ্যুতিক সংযোগের ব্যবস্থা করেন। কল্পনা হাজরা এই দ্রুত পরিষেবা পেয়ে গভীরভাবে অনুপ্রাণিত এবং আপ্লুত তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশের সঙ্গে সরকারকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানান। জেলা শাসক প্রিয়াঙ্কা সিংলা বলেন, মানুষের জীবন থেকে অন্ধকার দূর করে আশা ও সমৃদ্ধির রশ্মি নিয়ে আসছে দুয়ারে সরকার।

এরকমই আরও একটি ঘটনায় এলাকায় দুয়ারে সরকার নিয়ে আঁধার থেকে আলোয় ফেরার কাহিনী শোনালেন জেলা শাসক প্রিয়াঙ্কা সিংলা। আর্থিক অনটনের কারণে রামগোপালপুর এলাকার ছবি বাগদি বিদ্যুতের বিল মেটাতে না পারায় তাঁর বাড়ির বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। দুয়ারে সরকারের আবেদন করে তিনি তার বকেয়া টাকার অর্ধেকটা মিটিয়েই ফিরে পেলেন বিদ্যুৎ সংযোগ। দীর্ঘ দিন অন্ধকারে থাকার পর দুয়ারে সরকার এর দৌলতে তাঁর পরিবারও আলোক রশ্মির ছটায় আপ্লুত। ছবি বাগদি-ও বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে ধন্যবাদ জানান।

মন্তেশ্বর ব্লকের মন্তেশ্বর চামুন্ডা তলার বাসিন্দা প্রবীর রায় ব্রেন স্ট্রোক আক্রান্ত একজন অসুস্থ ব্যক্তি। মন্তেশ্বর ব্লক কৃষি দপ্তর এর উদ্যোগে কৃষক বন্ধু-নতুন প্রকল্পের আবেদন পত্র তার নিজ বাসস্থানে পৌঁছে তা পূরণ করে তার আবেদন মঞ্জুর করে মুখ্যমন্ত্রীর শুভেচ্ছা বার্তা প্রদান করা হয়। তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে জেলা শাসক প্রিয়াঙ্কা সিংলা জানান, ষষ্ঠ পর্যায়ের দুয়ারে সরকার শিবিরে বিনামূল্যে সামাজিক সুরক্ষা যোজনা, লক্ষ্মী ভান্ডার এবং খাদ্য সাথী প্রকল্পের পরিষেবা পেতে বেশি মানুষ আসছেন। বিভিন্ন প্রকল্প গুলোতে ২ এপ্রিল ৩২৮৬ টি আবেদন পত্র জমা পড়েছে। এর মধ্যে বিনামূল্যে সামাজিক সুরক্ষা যোজনায় ১২৬৩ টি, লক্ষ্মী ভান্ডার প্রকল্পে ৬৭৫ এবং খাদ্য সাথী প্রকল্পের ২৮২ টি আবেদন জমা পড়েছে। পরিসংখ্যান দিয়ে জেলা শাসক জানান, ৩ এপ্রিল জেলায় ২৯৩ টি স্থায়ী শিবির এবং ৪৩ টি ভ্রাম্যমান শিবির অনুষ্ঠিত হয়। বিভিন্ন প্রকল্পে কতগুলো আবেদন জমা পড়েছে আগামীকাল জানা যাবে। তিনি আরো জানান দুয়ারে সরকার এর পাশাপাশি পাড়ায় সমাধানও চলছে।