চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

হাওড়া-নিউ জলপাইগুড়ি বন্দে ভারত এক্সপ্রেসের যাত্রার সূচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী # ফুটবলে আর্জেন্টিনার বিশ্বজয়, ফ্রান্স কে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ান মেসি # জয়েন্ট এন্ট্রান্স (মেইন) এর প্রথমভাগের পরীক্ষা ২৪ জানুয়ারি থেকে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত # বর্ধমান জেলা রাইস মিলস অ্যাসোসিয়েশন এর শতবর্ষ পূর্তি উদযাপন # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায় #সরকারি কর্মচারীদের সুখের দিন শেষ, শ্রম কোড চালু হতে চলেছে সমগ্র ভারতে # পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার # #পূর্ব বর্ধমান জেলায় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ এর উদ্যোগে খালবিল ও চুনোমাছ উৎসবের উদ্বোধন ২৫ ডিসেম্বর

Striped hyena লোকালয়ে হায়না, ধরা পড়ল শিয়াল আটকানোর জন্য পাতা জালে


 

Striped hyena 

লোকালয়ে হায়না, ধরা পড়ল শিয়াল আটকানোর জন্য পাতা জালে


কাজল মিত্র, আসানসোল : জামুড়িয়া ব্লকের চুরুলিয়া পঞ্চায়েতের অন্তর্গত লদা গ্রামের ঘনবসতি এলাকায় ধরা পড়েছে একটি হায়না। বন দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, লদা গ্রামের মানুষ বুধবার সকালে গ্রাম লাগোয়া মাঠ-জঙ্গল থেকে বিকট ডাক শুনতে পান। সেখানে গিয়ে তাঁরা দেখেন, একটা পুকুরের পিছনে পরিত্যক্ত জমিতে শিয়াল আটকানোর জন্য পাতা জালে আটকা পড়েছে হায়নাটি। সঙ্গে সঙ্গে খবর দেওয়া হয় জামুরিয়া থানার অন্তর্গত চুরুলিয়া ফাঁড়িতে সেখান থেকে খবর যায় দুর্গাপুর বন বিভাগে। সেখান থেকে আসানসোল বনাঞ্চলে এবং আসানসোল বনাঞ্চলের রেঞ্জার ফরেস্ট অফিসারদের সঙ্গে নিয়ে গৌরাঙ্গি বিট অফিসের এবং সরিষাবলী বিটের দক্ষ কর্মচারীদের নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। পুলিশ ও বন দপ্তরের কর্মীদের যৌধ প্রচেষ্টায় হায়নাটিকে খাঁচাবন্দি করে নিয়ে যাওয়া হয়। চিকিৎসা করে সেটিকে পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। তার পর তাকে কোথায় ছাড়া যায়, সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন বন দপ্তরের কর্তারা।

বনদপ্তরের আধিকারিকরা জানান, গ্রামবাসীরা বন দপ্তরকে খবর দিয়ে ঠিক কাজই করেছেন। এই ধরনের মাংসাশী প্রাণী দেখলে সবার আগে ফরেস্ট অফিস বা পুলিশ-প্রশাসনকে জানানোই উচিত। কেউ অযথা তাদের সামনে যাওয়ার চেষ্টা করলে বিপদ হতে পারে।

ভারতে, পশ্চিম আফ্রিকার মরক্কো থেকে শুরু করে আরও নানা দেশে পাওয়া যায় এই স্ট্রাইপড হায়না। গোটা বিশ্বে ১০ হাজারের কাছাকাছি স্ট্রাইপড হায়না রয়েছে। এখনই সংরক্ষণের ব্যবস্থা না হলে বিপন্ন প্রাণীর তালিকায় নাম লেখাবে তারা। বাংলায় এদের দেখা মেলে মূলত পুরুলিয়া, পশ্চিম মেদিনীপুর এবং ঝাড়গ্রামের শুকনো এবং আধা শুকনো জঙ্গলে। আসানসোলে এর আগে তেমন ভাবে এই প্রাণীটির দেখা পাওয়া যায়নি। আসলে জঙ্গল কমে যাচ্ছে, কয়লাখনি বেড়ে যাচ্ছে তার ফলে তাদের বাসস্থান কমে যাচ্ছে তারা লোকালয়ে ঢুকে পড়ছে। পশ্চিম বর্ধমানের কিছু কিছু জায়গায় কয়লাখনি হচ্ছে বলে সেখানে জঙ্গল কমছে এবং যে এলাকায় জঙ্গল রয়েছে সেইখানে চলে যাচ্ছে হায়না গুলি। এই জেলায় জঙ্গল বেড়েছে বলন নিয়মিত বন্যপ্রাণীরা আসতে শুরু করেছে। জঙ্গলে আরও হায়না থাকারও সম্ভাবনা রয়েছে। জঙ্গল বাড়লেও হায়নাটি কেন লোকালয়ে চলে এল তা খতিয়ে দেখছেন বনকর্তারা।

Post a Comment

0 Comments