চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

শতবর্ষে বর্ধমান ডিস্ট্রিক্ট রাইস মিলস অ্যাসোসিয়েশন # উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়সরকারি কর্মচারীদের সুখের দিন শেষ, শ্রম কোড চালু হতে চলেছে সমগ্র ভারতে পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #পূর্ব বর্ধমান জেলায় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ এর উদ্যোগে খালবিল ও চুনোমাছ উৎসবের উদ্বোধন ২৫ ডিসেম্বর

ফসলের অবশিষ্টাংশ পোড়ানো প্রতিরোধ দিবস পালন


 

ফসলের অবশিষ্টাংশ পোড়ানো প্রতিরোধ দিবস পালন


অতনু হাজরা, জামালপুর : ৩ নভেম্বর সারা রাজ্য জুড়ে ফসলের অবশিষ্টাংশ পোড়ানো প্রতিরোধ দিবস পালন করা হচ্ছে। এই কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে নানা ধরনের অনুষ্ঠানও করা হচ্ছে। পূর্ব বর্ধমানের জামালপুরে জামালপুর ব্লক কৃষি অধিকর্তা করণের পক্ষ থেকে জামালপুর পঞ্চায়েত সমিতির মিটিং হলে আজ একটি সেমিনারের আয়োজন করা হয়। এই সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মেহেমুদ খান, জয়েন্ট বিডিও অরিন্দম জানা, কৃষি আধিকারিক সঞ্জিবুল ইসলাম, সহ সভাপতি দেবু হেমব্রম, পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ ভূতনাথ মালিক, কৃষি দপ্তরের অফিসার পল্লব দাস সহ অন্যান্যরা। আজ মূলত কৃষকদের বোঝানো হয় কেন তারা নারা পোড়াবেন না। বা নারা পোড়ানোর ক্ষতিকারক দিকগুলো কি কি, এই সব বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়।

 এডিএ সঞ্জীবুল ইসলাম কৃষকদের উদ্দেশ্যে বলেন, নারা না পুড়িয়ে সেগুলি দিয়ে অনেক কাজ করা যায়। বোলার বা মালচার দিয়ে ধান কাটলে কুটি গুলোকে মিহি করে কেটে একদম মাটিতে মিশিয়ে দেবে। ধান কাটার পর নারা গুলো বা কুটি দিয়ে কম্পোস্ট সার বানানো যাবে। মাঠে গোবরের উপর নিচে দুটি স্তর করে মাঝে কুটি দিয়ে ১৫ দিন ত্রিপল ঢাকা দিয়ে রাখলে সেটা কম্পোস্ট সারে পরিণত হবে। 

ওই কুটি গুলো দিয়ে মাশরুম চাষ করা যাবে কিম্বা কুটি গুলো বাড়িতে খড় কাটা মেশিনে কেটে তাতে গোবর মিশিয়ে গুল বা ঘুঁটে তৈরি করে বিক্রিও করা যেতে পারে। এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে লোনতও পাওয়া যাবে বলে তিনি জানান। চাষীরা প্রত্যেকেই উপস্থিত আধিকারিকদের আশ্বস্ত করেন যে তারা নারা পোড়াবেন না।

Post a Comment

0 Comments