চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # মাধ্যমিকে যুগ্ম প্রথম বর্ধমান সিএমএস হাই স্কুলের রৌনক মন্ডল এবং বাঁকুড়ার রাম হরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের অর্ণব ঘড়াই # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়মাধ্যমিকের পর উচ্চমাধ্যমিকেও তাক লাগালো কাটোয়ার অভীক পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন

বোমা উদ্ধারে চাঞ্চল্য, তৃণমূলে চাপান-উতোর


 

বোমা উদ্ধারে চাঞ্চল্য, তৃণমূলে চাপান-উতোর 


ডিজিটাল ডেস্ক রিপোর্ট, সংবাদ প্রভাতী :  নির্মীয়মান বাড়ির ভিতর থেকে বোমা উদ্ধারের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে জামালপুরে। জামালপুর থানার জ্যোৎশ্রীরাম অঞ্চলের অমরপুর গ্রামের ঘটনা। পুলিশ এলাকার একটি নির্মীয়মান বাড়ির ভিতর থেকে বস্তা ভর্তি তাজা বোমা উদ্ধার করেছে। কে বা কারা এই বোমা ভর্তি বস্তা সেখানে মজুদ করেছিল তার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। 

জোৎশ্রীরাম অঞ্চলের কার্তিক ঘোষ নিজেকে তৃণমূল কংগ্রেসের অঞ্চল সভাপতি উল্লেখ করে মিডিয়াকে জানিয়েছেন, ” দলীয় গোষ্ঠী কোন্দলের জেরে দলের পুরনো কর্মীদের হেনস্তা করার জন্যই বোমা রেখেছিল। জামালপুর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি মেহেমুদ খানের গোষ্ঠীর লোকজনই এখানে বোমা রেখেছে আমাদের বদনাম করার জন্য। আমরা প্রদীপ পাল ও অরবিন্দ ভট্টাচার্যের সঙ্গে দল করি। তারা দলের পুরনো কর্মী। যারা এই বোমা রেখেছে তারা বালি মাফিয়া। দলের নাম ভাঙিয়ে বিভিন্ন ধরনের দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত। ওদের এই সব কাজের সমর্থন না করতেই দলের পুরনো কর্মীদের এই অস্থায়ী পার্টি অফিস থেকে তাড়ানোর জন্য চক্রান্ত করছিল। পুলিশ তদন্ত করে আসল দোষীদের গ্রেপ্তার করুক।” 

এই বিষয়ে জামালপুর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি মেহেমুদ খান জানান, ” অমরপুর এলাকায় তৃণমূলের কোনো পার্টি অফিস নেই। যে ব্যক্তির বাড়ি থেকে বোমা উদ্ধার করেছে পুলিশ ওই বাড়িতে বিজেপির কিছু লোকজন আসা যাওয়া করতো বলে শুনেছি। আর তাছাড়া ব্লকে এই মুহূর্তে দলের কোনো কমিটি নেই। তাই ওই অঞ্চলের কেউ দলের দায়িত্বেও নেই। নতুন কমিটি তৈরি হলে তখন সভাপতি ঘোষণা করা হবে। সুতরাং বোমা উদ্ধারের ঘটনার সঙ্গে তৃণমূলের কোনো যোগ নেই। পুলিশ তদন্ত করে দোষী ব্যক্তিদের খুঁজে বের করুক।”

Post a Comment

0 Comments