চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # মাধ্যমিকে যুগ্ম প্রথম বর্ধমান সিএমএস হাই স্কুলের রৌনক মন্ডল এবং বাঁকুড়ার রাম হরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের অর্ণব ঘড়াই # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়মাধ্যমিকের পর উচ্চমাধ্যমিকেও তাক লাগালো কাটোয়ার অভীক পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন

Tribal Festival  মহাসমারোহে অনুষ্ঠিত হল আদিবাসী সমাজের কর্মা উৎসব ঘাটওয়াল



 

Tribal Festival  মহাসমারোহে অনুষ্ঠিত হল আদিবাসী সমাজের কর্মা উৎসব ঘাটওয়াল 

# সংবাদ প্রভাতী, ৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

কাজল মিত্র, আসানসোল : পশ্চিম বর্ধমান জেলার আসানসোল মহকুমার সালানপুর ব্লকের আল্লাডি গ্রাম পঞ্চায়েতের কলাডাবড় গ্রামের ফুটবল মাঠে অনুষ্ঠিত হল আদিবাসী সমাজের কর্মা উৎসব ঘাটওয়াল। রবিবারের এই উৎসবে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বারাবনির বিধায়ক তথা আসানসোল মেয়র বিধান উপাধ্যায় ও প্রাক্তন কৃষি মন্ত্রী হরিনারায়ন রায়। এদিনের এই অনুষ্ঠানে বিধায়ককে ফুলের তোড়া দিয়ে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। পাশাপাশি আদিবাসী মহিলারা সমাজ ও উৎসবের রীতি মেনে বিধায়কের পা ধুয়ে দিয়ে তাঁকে বিশেষ সম্মান জানান। 

বিধায়ক তথা মেয়র  বিধান উপাধ্যায় প্রদীপ জ্বালিয়ে ও পূজা করে এই উৎসবের শুভ সূচনা করেন। এরপর অনুষ্ঠানের সম্পর্কে বিধায়ক বলেন,  সালানপুর ব্লকের আদিবাসী ঘাটোয়াল সমাজের পক্ষ থেকে  তৃতীয়তম এই উৎসব  পালন করা হল। কল্যা গ্রামে প্রথম বছর এবং জিৎপুর গ্রামে দ্বিতীয় বছর এই উৎসব হয়েছিল সেখানেও এসেছিলাম। এই অনুষ্ঠানে প্রতিবছর আসি। আমরা সাংস্কৃতিক রীতিনীতি মেনে সকল সমাজের মানুষের সব উৎসব পালন করে থাকি। তিনি আরও বলেন যে, এই সমাজের উন্নয়নের জন্য যে ধরনের সাহায্যের প্রয়োজন, তা আমি সব সময় করবো। এই অনুষ্ঠান সম্পর্কে ঘাটওয়াল সমাজের সভাপতি সহদেব রায় বলেন, আমাদের এই উৎসব বহু যুগ যুগ ধরে চলে আসছে। সেই সূত্রেই উত্তরাধীকার হিসাবে সাত দিন ধরে এই পুজো হয়ে থাকে। এই উৎসবে বিশেষ ভাবে কর্মা দেবতার পুজো করা হয়। মহিলারা সাত দিন ধরে কর্মা গাছের ডাল পুঁতে সারারাত ধরে এই পুজো করে থাকেন। তাছাড়া এই উৎসবে বোন ও দিদিরা ভাই দাদাদের দীর্ঘায়ু কামনায় উপবাস করে এই পুজো করেন। তাছাড়া এই অনুষ্ঠানে সকলে একদিন একত্রিত হয়ে নাচ গান পূজা পাঠ করেন। ঘাটওয়াল সমাজের বহু মহিলা ও পুরুষ এই অনুষ্ঠানে এসে একসাথে আনন্দে মেতে ওঠেন।

এদিনের এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সালানপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি ফাল্গুনী কর্মকার ঘাসি, সহসভাপতি বিদ্যুৎ মিশ্র, জেলাপরিষদ এর কর্মাধ্যক্ষ মহম্মদ আরমান, সালানপুর ব্লক তৃণমূলের সহসভাপতি ভোলা সিং, আল্লাডি পঞ্চায়েতের প্রধান সেলিম মিয়া, পঞ্চায়েতের সদস্য উজ্জ্বল মন্ডল, হিন্দি প্রকোষ্ঠ এর সভাপতি শশী ভূষণ পান্ডে,  ঘটওয়াল সমাজের সভাপতি সহদেব রায়, সম্পাদক শিবু রায়, কোষাধ্যক্ষ শংকর রায়, সুজিত মোদক, বাবলু ঘাসি, দেবদাস চ্যাটার্জী,সহ অনেকে।

Post a Comment

0 Comments