চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # মাধ্যমিকে যুগ্ম প্রথম বর্ধমান সিএমএস হাই স্কুলের রৌনক মন্ডল এবং বাঁকুড়ার রাম হরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের অর্ণব ঘড়াই # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়মাধ্যমিকের পর উচ্চমাধ্যমিকেও তাক লাগালো কাটোয়ার অভীক পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন

৮০ বছরে হাজরা পার্ক  দুর্গোৎসব, এবার  "তান্ডব" দেখবে মানুষ


 

৮০ বছরে হাজরা পার্ক  দুর্গোৎসব, এবার  "তান্ডব" দেখবে মানুষ 


Digital Desk Report 
Kolkata, 15th Setember, 2022 : 

অভিনব মন্ডপ  ভাবনা  এবং  প্রতিমা  দিয়ে  প্রতিবছর দর্শনার্থীদের মন জয় করে নেয় হাজরা পার্ক  দুর্গোৎসব।  ৮০ বছরে  পদার্পণ করে এবারের থিম ''তান্ডব"। সাম্প্রতিক সময়ে  বিশ্বজুড়ে ঘটে চলা  ঘটনাবলীকেই উপস্থাপিত করা হয়েছে  "তান্ডব" থিমের মধ্যে দিয়ে। থিম ও উপস্থাপনায় এটি হয়ে উঠবে মানব জীবনের একটি জীবন্ত দলিল। এই পুজো হাজরা ক্রসিংয়ে (যতীন দাস পার্কের ভিতরে) অবস্থিত। 

হিন্দু শাস্ত্রে তান্ডবের বৈজ্ঞানিক সত্য  বিশ্বতত্ত্ব অনুসারে বর্ণনা করা হয়েছে। এই মহাবিশ্বে  প্রতি নিয়ত, প্রতি মূহুর্তে ঘটে চলেছে ''তান্ডব"। যা অদেখা সৃষ্টি হিসাবেই লোকচক্ষুর অন্তরালে থেকে যায়। মহাবিশ্বের বিভিন্ন স্তরে ঘটে যাওয়া পারমাণবিক অস্থিরতায় ধ্বংস ও সৃষ্টির দৈনন্দিন চক্র তৈরি হয় এবং ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে। হিন্দু শাস্ত্র অনুসারে, তান্ডব আমাদের জীবনের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ যা আমাদের অজান্তেই ঘটে চলেছে  অবিরাম- অবিরত। 

মহা শক্তির তরঙ্গের  ঢেউ  প্রতি মূহুর্তে  অনুরণিত হচ্ছে  মানব শরীরে। সমগ্র মহাবিশ্ব শক্তির একক উৎস হয়ে ওঠে। আবার, সেই একক শক্তি রূপান্তরিত হয়। মহাবিশ্ব একটি একক শক্তির আধারে পরিণত হয় যা আবারও বহুমাত্রিক শক্তিতে রূপান্তরিত হয়। অর্থাৎ তাণ্ডব। এটি শুধুমাত্র একটি ঘটনা নয় যা একটি নির্দিষ্ট মুহূর্তে ঘটে, তান্ডব আসলে মহাবিশ্বের একটি অবিচ্ছিন্ন প্রক্রিয়া, যা আমরা সাধারণত ঐশ্বরিক দৃষ্টিকোণ থেকেই জানি।

উদ্যোক্তারা জানান, হাজরা পার্কে, আমাদের এই বছরের দুর্গাপূজার থিম  জীবনের এই শক্তিকে দেখানোর চেষ্টা করেছে। এই কাজটি তার শৈল্পিক প্রয়োগে দর্শকের কাছে নিত্যদিনের সাক্ষী হয়ে থাকবে। হাজরা পার্ক দুর্গোৎসব কমিটির যুগ্ম সম্পাদক সায়ন দেব চ্যাটার্জী মিডিয়ার সঙ্গে  কথা বলতে গিয়ে বলেন, “এবারের থিম হল মহাবিশ্বের ক্রমাগত প্রক্রিয়া নিয়ে  ভাবনার  ফসল "। আমাদের   থিমটি হল তান্ডব যা আসলে মানব জীবনের একটি ভৌত   দলিল। থিমের মূল ধারণা তান্ডব,   যা মূলত কোনো নির্দিষ্ট মুহূর্ত নয়, বরং একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়া। সৃষ্টি তত্ত্ব অনুসারে এই মহাবিশ্বের কোথাও না কোথাও হানাহানি ঘটে প্রতিদিন। মহাবিশ্বের বিভিন্ন স্তরে ঘটে যাওয়া অনু- পারমাণবিক সময়ে ধ্বংস ও সৃষ্টির আধার তৈরি হয়। ভবানীপুরে এই পুজো শুরু হয়, চলে  কয়েক বছর ধরে, পরে  এটি ১৯৪৫ সালে হাজরা পার্কে স্থানান্তরিত হয়। প্রথম থেকেই এই পূজা অস্পৃশ্যতার বিরুদ্ধে কথা বলেছে।”

যখন লাগামহীন বৃষ্টি বিস্তীর্ণ চরাচরকে ধুয়ে দেয়, তখন পুনর্বাসন কেন্দ্রগুলি গৃহহীনদের জন্য নতুন আবাস হিসাবে আবির্ভূত হয় যারা প্রকৃতির উন্মত্ত রূপের সামনে তাদের অবিরাম চেতনা ছাড়া প্রায় সবকিছু হারিয়েছে। ঝড় যখন ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়ে যাচ্ছে, প্রকৃতি এবং মানুষের জীবনকে একইভাবে ধ্বংস করছে। এটি একটি সম্পূর্ণ মানব সভ্যতার অবক্ষয় ঘটায় এবং একটি আধুনিক সমাজকে তার আঙুলের ছোঁয়ায় ধ্বংস করার ক্ষমতা দিয়ে যায়। গত তিন বছর ধরে  আমরা  করোনা অতিমারীর বিরুদ্ধে  অবিরাম লড়াই করে  এসেছি।  আক্ষরিক অর্থেই  সে মানব জীবনকে ধ্বংস করে, চালিয়েছে "তান্ডব"।  হাজরা পার্ক দুর্গোৎসব কমিটি  চায় সেই  তান্তবের দিন  শেষ  হোক। মা এর আশীষ বর্ষিত  হোক  সবার জীবনে।  হাজরা পার্কের পূজার নিজস্ব তাৎপর্য ও গৌরব রয়েছে। একটা সময় ছিল যখন দুর্গাপূজা প্রধানত উচ্চবিত্ত ও উচ্চবর্ণের পরিবারের  বাড়িতে হতো। নিম্নবর্ণের লোকদের  এই পুজোগুলিতে প্রবেশাধিকার ছিলনা এবং দেবীর প্রসাদ  থেকেও তারা ছিল  ব্রাত্য।  এই সুবিধাবঞ্চিত মানুষের জন্য পুজোর আনন্দ  উপভোগ করা কল্পনার বাইরে  ছিল। পারিবারিক পুজোগুলি ধীরে ধীরে "বারোয়ারি" পুজোয়  বদলে যাচ্ছিল কিন্তু "সর্বজনীন" বা ধর্মনিরপেক্ষ হয়ে উঠতে  দীর্ঘ পথ বাকি  ছিল। সেইসব  দিনে হরিজন/মেথরদের  অপবিত্র বলে মনে করত কারণ তারা কলকাতা মিউনিসিপ্যাল   কর্পোরেশন এর  খোলা গর্তের ল্যাট্রিন এবং শহরের পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা পরিষ্কার করার জন্য নিযুক্ত ছিল এবং তাই পুজো প্যান্ডেলগুলিতে তাদের প্রবেশে সীমাবদ্ধতা ছিল।

১৯৪২ সালে। সালে তৎকালীন মেয়র সি আর দাস এবং  সুভাষ চন্দ্র বসুর নির্দেশনায় কলকাতা মিউনিসিপ্যাল   কর্পোরেশনের সহায়তায় এই পুজো শুরু হয়েছিল। এই পুজো সাধারণ জনগণ, সুবিধাবঞ্চিত, অনগ্রসর শ্রেণী এবং হরিজনদের জন্য উন্মুক্ত ছিল। এর আগে, এই পুজো ভবানীপুরে অনুষ্ঠিত হত। ১৯৪৫  সালে তা হাজরা পার্কে স্থানান্তরিত হয়। অনগ্রসর শ্রেণীর লোকেরা পুজোয় অবাধে অংশগ্রহণ করতে পারত, যা আজও অব্যাহত রয়েছে। আজও, ঐতিহ্য হিসাবে, প্রায় ১০০০ হরিজন উপবিষ্ট এবং ব্যক্তিগতভাবে কমিটির সদস্যদের দ্বারা ভোগ ও প্রসাদ পরিবেশন করা হয়।

Post a Comment

0 Comments