চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # মাধ্যমিকে যুগ্ম প্রথম বর্ধমান সিএমএস হাই স্কুলের রৌনক মন্ডল এবং বাঁকুড়ার রাম হরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের অর্ণব ঘড়াই # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়মাধ্যমিকের পর উচ্চমাধ্যমিকেও তাক লাগালো কাটোয়ার অভীক পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন

বনবিবিতলা হাই স্কুলে রুফটপ কিচেন গার্ডেন উদ্বোধন ও চক্ষু পরীক্ষা শিবির


 

বনবিবিতলা হাই স্কুলে রুফটপ কিচেন গার্ডেন উদ্বোধন ও চক্ষু পরীক্ষা শিবির 


অতনু হাজরা, জামালপুর : পূর্ব বর্ধমানের জামালপুরের বনবিবিতলা উচ্চ বিদ্যালয়ে পঞ্চায়েত সমিতির আর্থিক সহযোগিতায়  কিচেন গার্ডেনের উদ্বোধন করা হলো আজ। এরই সাথে সাথে বিদ্যালয়ে জামালপুর লায়ন্স ক্লাবের পক্ষ থেকে ছাত্র ছাত্রীদের নিয়ে একটি বিনামূল্যে চক্ষু পরীক্ষা শিবিরের আয়োজন করা হয়। দুটি অনুষ্ঠানেরই উদ্বোধন করেন পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মেহেমুদ খান।  মেহেমুদ খান বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন তিনি খবর পান বনবিবিতলা স্কুল সারা বছর ধরে নানা অনুষ্ঠান করে থাকে। তিনি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কুমার রায় কে বিশেষ ভাবে অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানান স্কুলটাকে এইভাবে বিশেষ নজর দিয়ে পরিচালনা করার জন্য।  

লায়ন্স ক্লাবের পক্ষ থেকে এই চক্ষু পরীক্ষা শিবিরে উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের সম্পাদক সুনীল পাল, ছিলেন অরূপ রায়, সোমনাথ গুহ সহ চিকিৎসকরা। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষক দিবাকর কোলে, পরিচালন সমিতির সদস্য উৎপল দাস সহ শিক্ষক-শিক্ষিকারা। বিদ্যালয়ে নিচে মাটিতে বসাবার জায়গার সংকুলান না হওয়ায় ছাদের উপরেই রুফ টপ বাগান করা হয়েছে। এই গাছে ফলন হলে মিড ডে মিলে টাটকা, সতেজ সবজি ছাত্র ছাত্রীরা খেতে পাবে। এই অনুদান দেওয়ার জন্য প্রধান শিক্ষক শ্যামল কুমার রায় পঞ্চায়েত সমিতিকে ধন্যবাদ জানান, একই সাথে লায়ন্স ক্লাবকেও ধন্যবাদ জানান তাঁর বিদ্যালয়ে বিনা ব্যয়ে চক্ষু পরীক্ষা শিবির করার জন্য। 

অপরদিকে বেরুগ্রাম আচার্য্য গিরিশ চন্দ্র বসু বিদ্যাপীঠে (উ:মা:)  সর্ব শিক্ষা মিশন প্রকল্পের অধীনে ব্লক হাসপাতালের পক্ষ থেকে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়। পঞ্চম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র ছাত্রীদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়। স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে চিকিৎসকদের দলে ছিলেন ডাঃ শেখ সাইফুদ্দিন, ডাঃ রাজিব বসু, ডাঃ সর্বানি সরকার এবং জিএনএম জয়ন্তী ঘোষ।

Post a Comment

0 Comments