Scrooling

নরেন্দ্র মোদীর মন্ত্রীসভায় পশ্চিমবঙ্গ থেকে শপথ নিলেন ডঃ সুকান্ত মজুমদার ও শান্তনু ঠাকুর # অ্যালার্জিজনিত সমস্যায় ভুগছেন ? বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডাঃ অয়ন শিকদার আগামী ২১ জুলাই বর্ধমানে আসছেন। নাম লেখাতে যোগাযোগ 9734548484 অথবা 9434360442 # আঠারো তম লোকসভা ভোটের ফলাফল : মোট আসন ৫৪৩টি। NDA - 292, INDIA - 234, Others : 17 # পশ্চিমবঙ্গে ভোটের ফলাফল : তৃণমূল কংগ্রেস - ২৯, বিজেপি - ১২, কংগ্রেস - ১

পুঁচড়া গ্রামে খোঁজ মিললো প্রাচীন মূর্তির ধ্বংসাবশেষ


 

পুঁচড়া গ্রামে খোঁজ মিললো প্রাচীন মূর্তির ধ্বংসাবশেষ 


কাজল মিত্র, আসানসোল : পশ্চিম বর্ধমান জেলার বারাবনি ব্লকের অন্তর্গত পুঁচড়া গ্রামে খোঁজ মিলল বহু পুরাতন মাটির নিচে থাকা মূর্তির ধ্বংসাবশেষ। খবর পাওয়ার পরই পুঁচড়া গ্রামে পৌঁছায় ভারতীয় পুরাতত্ত্ব সর্বেক্ষণের একটি দল। এই গ্রাম ঘুরে দেখার পাশাপাশি মূর্তি পাওয়া স্থানের পর্যবেক্ষণ  করেন তাঁরা। 

গ্রামেরই এক বয়োজ্যেষ্ঠ অরুণ মাজি জানান,  প্রায় দুই হাজার বছর পুরাতন যুগের ধ্বংসাবসেস রয়েছে পুঁচড়া গ্রামের মাটির নিচে।এই গ্রামটি পঞ্চ চুড়া নাম থেকেই গ্রামের নাম পুঁচড়া হয়েছে। এখনো মাটি খুঁড়লে পুরাতন যুগের থালা বাসন, মূর্তি পাওয়া যায়। তাছাড়া এই গ্রামে যে রাজ রাজাদের পুরাতন ইঁটের তৈরি রাজমহল ছিল তা ধ্বংস হয়ে গেছে কিন্তু সেসকল দামি ইঁট গুলি চোরেরা চুরি করে নিয়ে পালিয়েছে। কিছু মূর্তি রয়েছে যেগুলি চুরি করতে গিয়েও পারেনি। 

কারন জানা গেছে ওই মূর্তি গুলি  বিশালকায়  একটি কালো ও অন্যটি সাদা রঙের দুটি সাপ এখনো পাহাড়া দিয়ে রেখেছে। যার ফলে সেগুলি এখনো চুরি হয়নি।তবে আমরা গ্রামবাসীরা চাই এই পুরাতন স্মৃতি যেন পুঁচড়া গ্রামে রয়ে যায়। সেই আবেদন রাখব সরকারের কাছে।

এবিষয়ে পুঁচড়া পঞ্চায়েতের উপপ্রধান পার্থসারথি মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, বারাবনি ব্লকের এই গ্রামে কয়েকশো বছরের পুরনো একটি সভ্যতার ধ্বংসাবশেষ আছে। সেই সভ্যতার কিছু অংশের নিদর্শন এখন দেখা গেলেও, বেশির ভাগ মাটির তলায় ঢাকা পড়েছে। গ্রামের বাসিন্দারা বছরখানেক আগে পুরাতত্ত্ব সর্বেক্ষণে চিঠি লিখে মাটির তলায় চাপা পড়ে যাওয়া, সে সব নিদর্শন খনন করে বার করার আবেদন করেছিলেন। পুরাতত্ত্ব সর্বেক্ষণ সূত্রে জানা গিয়েছে, দেখা যাওয়া মূর্তিগুলির মধ্যে রয়েছে অবলোকিতেশ্বর , বিষ্ণু। পার্থসারথি জানান , আরও কিছু প্রাচীন নিদর্শন মিলতে পারে, এই ভেবে পুরাতত্ত্ব সর্বেক্ষণের কাছে খনন করার আবেদন জানানো হয়েছিল।  ওই আবেদনের প্রেক্ষিতে ২২ জুলাই তিন সদস্যের ওই দলটি গ্রাম পরিদর্শন করেছে। পরিদর্শনে আসা দলের সদস্যেরা অবশ্য এ বিষয়ে এখনই কোনও কিছু জানাতে চাননি।