চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # মাধ্যমিকে যুগ্ম প্রথম বর্ধমান সিএমএস হাই স্কুলের রৌনক মন্ডল এবং বাঁকুড়ার রাম হরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের অর্ণব ঘড়াই # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়মাধ্যমিকের পর উচ্চমাধ্যমিকেও তাক লাগালো কাটোয়ার অভীক পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন

মাধ্যমিকে যুগ্মভাবে প্রথম স্থানাধিকারিকে সম্বর্ধনা

 


মাধ্যমিকে যুগ্মভাবে প্রথম স্থানাধিকারিকে সম্বর্ধনা 


অতনু হাজরা, বর্ধমান : মাধ্যমিকের রেজাল্ট বেরুতেই দেখাযায় পূর্ব বর্ধমানের সি এম এস স্কুলের ছাত্র রৌনক মন্ডল ৬৯৩ নাম্বার পেয়ে যুগ্ম ভাবে প্রথম স্থান অধিকার করেছে। মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রথম স্থানাধিকারী রৌনক মন্ডল –কে সংবর্ধনা প্রদান করলেন  পূর্ব বর্ধমানের জেলা শাসক প্রিয়াঙ্কা  সিংলা। রৌনকের হাতে জেলা শাসক ল্যাপটপ তুলে দেন ।  জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা পেয়ে খুশী রৌনক এবং তাঁর বাব-মা। 

এদিকে মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রথম স্থানাধিকারী রৌনক মন্ডল ছাড়াও শহর বর্ধমানের  আরো পাঁচজন দশের মধ্যে মেধা তালিকায় স্থান করে নিয়েছে। বর্ধমান শহরের মেধা তালিকার স্থানাধিকারিরা হলো প্রথম : রৌণক মণ্ডল ৬৯৩, সিএমএস হাই স্কুল। পঞ্চম : সামিমা ইয়াসমিন ৬৮৯, বিদ্যার্থী ভবন গার্লস হাই স্কুল। ষষ্ঠ : শ্রীজিতা গোস্বামী ৬৮৮, মিউনিসিপ্যাল গার্লস হাই স্কুল। নবম : অঙ্কুর ঘোষ ৬৮৫, মিউনিসিপাল হাই স্কুল। নবম : শৌণক দে ৬৮৫, টাউন স্কুল। দশম : শৌণক ব্যানার্জী  ৬৮৪, সিএমএস হাই স্কুল।

 আজ রৌনকের এই সাফল্যে গোটা শহর তথা জেলা গর্বিত। সেই রৌনককে সাফল্যের স্বীকৃতি হিসেবে তাকে সম্বর্ধনা দিতে তাঁর গোলহাটের বাড়িতে পৌঁছে যায় পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির  পূর্ব বর্ধমান জেলা শাখার শিক্ষকদের একটি প্রতিনিধি দল। সেই দলে ছিলেন শিক্ষক শুভাশীষ ভট্টাচার্য্য, হাবিবুর রহমান, অতনু নায়েক, রবিকিরণ মুখার্জী, দেবদ্বীপ চ্যাটার্জী সহ অন্যান্য শিক্ষকরা।

 শিক্ষকদের পক্ষ থেকে রৌনকের হাতে একটি ফুলের তোড়া, একটি বই, একটি পেন ও একটি মিষ্টির প্যাকেট তুলে দেওয়া হয় এবং তার আগামী দিনের সাফল্য কামনা করা হয়। উল্লেখ্য রৌনকের বাবা কুন্তল মন্ডল পেশায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক।

Post a Comment

0 Comments