চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

হাওড়া-নিউ জলপাইগুড়ি বন্দে ভারত এক্সপ্রেসের যাত্রার সূচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী # ফুটবলে আর্জেন্টিনার বিশ্বজয়, ফ্রান্স কে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ান মেসি # জয়েন্ট এন্ট্রান্স (মেইন) এর প্রথমভাগের পরীক্ষা ২৪ জানুয়ারি থেকে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত # বর্ধমান জেলা রাইস মিলস অ্যাসোসিয়েশন এর শতবর্ষ পূর্তি উদযাপন # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায় #সরকারি কর্মচারীদের সুখের দিন শেষ, শ্রম কোড চালু হতে চলেছে সমগ্র ভারতে # পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার # #পূর্ব বর্ধমান জেলায় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ এর উদ্যোগে খালবিল ও চুনোমাছ উৎসবের উদ্বোধন ২৫ ডিসেম্বর

২৫ শে বৈশাখ বিকেলে থেকে মেগা কবি প্রণামের অনুষ্ঠান হলো বর্ধমান টাউন হলে


 

২৫ শে বৈশাখ বিকেলে থেকে মেগা কবি প্রণামের অনুষ্ঠান হলো বর্ধমান টাউন হলে 


ডিজিটাল ডেস্ক রিপোর্ট, সংবাদ প্রভাতী : ২৫ শে বৈশাখ শহর বর্ধমানে বড় আঙ্গিকে কবি প্রণামের আয়োজন করেছে বর্ধমান সঙ্গীত সমাজ। অনুষ্ঠানের সহযোগিতায় ছিল 'সংবাদ প্রভাতী' পত্রিকা, আলাপ, ঐকতান ও সরলরেখা।  ঐতিহ্যবাহী এই অনুষ্ঠান এবছর সকালের পরিবর্তে বিকেলে আয়োজিত হয়। বর্ধমান টাউন হলে বিকেল পৌনে পাঁচটায় সঙ্গীত সমাজের শিল্পীদের পরিবেশিত গানের মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। অনুষ্ঠানে অতিথিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বর্ধমান পৌরসভার চেয়ারম্যান পরেশ চন্দ্র সরকার।

 তিনি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরপর সংস্কৃতিপ্রেমী দর্শক-শ্রোতাদের প্রতি শুভেচ্ছা বার্তা দিয়ে জানান বর্ধমান টাউন হল এর ঐতিহ্য বজায় রেখে আমূল সংস্কার করা হবে। আগামী ১৬ মে থেকে চার - পাঁচ মাসের জন্য টাউন হল বন্ধ থাকবে। আরও আগেই এই সংস্কারের কাজের জন্য হল বন্ধ রাখার কথা হয়েছিল। কবি গুরুর জন্মদিন পালনের জন্য ২৫ বৈশাখ থেকে সাত দিন ছেড়ে হল বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। টাউন হলের সংস্কার কাজের জন্য দেড় কোটি টাকা মঞ্জুর করা হয়েছে। 

এদিনের অনুষ্ঠানে বর্ধমান সঙ্গীত সমাজের সভাপতি বিমলানন্দ রায় এর প্রাককথনের পর মূল অনুষ্ঠান শুরু হয়। 

এবছর একক সঙ্গীতানুষ্ঠানে অংশ নিয়েছেন গৌতম বন্দ্যোপাধ্যায়, স্বাতী তেওয়ারী, বনানী চক্রবর্তী, চন্দা চট্টোপাধ্যায়, কৃষ্ণা বসু মিত্র, মানব বন্দ্যোপাধ্যায়,  শুভ্রা দাস,  শর্মিতা সামন্ত রায়, শম্পা কোনার, শমী চক্রবর্তী, জয়া দাস, অনন্যা দত্ত, সুতপা দাস, দেবব্রত সামুই, অপর্ণা চট্টোপাধ্যায়, লিলি দাস, লাভলী মন্ডল,  শানু পরামাণিক, সৌরভ রায়, বর্ণালী কুণ্ডু, জয়তী ভৌমিক, রাজশ্রী বন্দ্যোপাধ্যায়, ইন্দ্রাণী রায়, বিপাশা নাগ,  সৌমিলি বসু, মৌসুমী চক্রবর্তী, সঞ্জয় ঘোষ, উজ্জ্বল নন্দী, সিতারা সুলতানা, সায়ন্তিকা চট্টরাজ, অঙ্কিতা সাধু, তাপস চট্টোপাধ্যায়, নীভা বটব্যাল ও নিশীথ পাল।

সম্মেলক সঙ্গীত পরিবেশনায় অংশ নেয় বর্ধমান সঙ্গীত সমাজ, উত্তরায়ণ, সঙ্গীতম, আনন্দগান, আয়না, রুদ্রপলাশ, অনুরণন, সরলরেখা, ইমনকল্যাণ, ত্রিসপ্তক, সুরঙ্গনা, তবলা তরঙ্গ, সতীপ্রসাদ সঙ্গীত একাডেমী,  ভারতীয় গণনাট্য সংঘ, সৃজনী ও মুখর সংস্কৃতিক সংস্থা।

পাঠ ও আবৃত্তিতে অংশ নিয়ৈ ললিত কোনার, জয়ন্ত ঘোষ, কাকলি রায়, অনির্বাণ বিশ্বাস, অনুপম চট্টোপাধ্যায়, মৌসুমী মুখোপাধ্যায়, উদয় মুখোপাধ্যায়, প্রবীর হালদার, পাঞ্চালী ঘোষ, মৌমিতা চট্টোপাধ্যায়, এণাক্ষী নন্দী, শাশ্বতী মজুমদার,  নন্দিতা দাস ও মমতা বেজ বাগ। 

শিল্পীদের যন্ত্রানুষঙ্গে সহযোগিতা করেন মানিক মজুমদার, অরুন দাস, তন্ময় বিশ্বাস, অনুপম রায়, প্রণব দে ও সন্দীপ দেবনাথ।

অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় ছিলেন রাজেশ হালদার ও শতভিষা চট্টোপাধ্যায়।

সমগ্র অনুষ্ঠানটির ভাবনা ও নির্মাণ করেছেন বিমলানন্দ রায়, শ্যামল কুমার দাস, শান্তনু চক্রবর্তী, জগন্নাথ ভৌমিক, মানব বন্দ্যোপাধ্যায়, রাজেশ হালদার, কিংশুক রায়, সুকান্ত দাস, কৌস্তুভ রায় ও স্বপন দাস।

Post a Comment

0 Comments