চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

হাওড়া-নিউ জলপাইগুড়ি বন্দে ভারত এক্সপ্রেসের যাত্রার সূচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী # ফুটবলে আর্জেন্টিনার বিশ্বজয়, ফ্রান্স কে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ান মেসি # জয়েন্ট এন্ট্রান্স (মেইন) এর প্রথমভাগের পরীক্ষা ২৪ জানুয়ারি থেকে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত # বর্ধমান জেলা রাইস মিলস অ্যাসোসিয়েশন এর শতবর্ষ পূর্তি উদযাপন # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায় #সরকারি কর্মচারীদের সুখের দিন শেষ, শ্রম কোড চালু হতে চলেছে সমগ্র ভারতে # পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার # #পূর্ব বর্ধমান জেলায় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ এর উদ্যোগে খালবিল ও চুনোমাছ উৎসবের উদ্বোধন ২৫ ডিসেম্বর

আড়াই'শ বছরের প্রাচীন ধর্মরাজ এর পুজোয় ভক্তদের উপচে পড়া ভিড়


 

আড়াই'শ বছরের প্রাচীন ধর্মরাজ এর পুজোয় ভক্তদের উপচে পড়া ভিড় 


কাজল মিত্র, আসানসোল : ধর্মরাজ পুজো বুদ্ধপূর্ণিমার দিনে অনু্ষ্ঠিত হলেও এই পুজো সম্পন্ন হতে সময় লাগে কোথাও তিনদিন, আবার কোথাও এই পুজো সম্পন্ন হয় চারদিনে। আবার কোথাওবা সাতদিন ধরে চলে এই পুজোর রীতি নীতি। 

বাবা ধর্মরাজ পু্জোর কয়েকদিন আগে থেকেই ভক্তরা উপবাস করতে শুরু করে। বিশেষত বুদ্ধ পূর্ণিমার দিনে ভক্তদের লোটন, কাঁটা লোটন, দণ্ডি দেওয়া, দেহের বিভিন্ন অংশ ছুঁচ দ্বারা ফোঁড়া, আগুন খেলা, চাবুক মারা  যা বাণফোঁড়া নামে পরিচিত ইত্যাদি ধর্মরাজ পুজোর বিশেষ অংশ রূপে দেখা যায়।সেই দৃশ্যের দেখা মিললো সোমবার রাতে সালানপুর ব্লকের পাহাড়পুর গ্রামে। জানা যায় এই পাহাড়পুর গ্রামে প্রায় আড়াই'শ বছর ধরে বাবা ধর্মরাজ এর পুজো হয়ে আসছে। এই গ্রামে রয়েছে বিভিন্ন জাতির মানুষ যারা একত্রিত হয়ে এই পুজোর কটা দিন আনন্দে কাটান।

প্রায় সাতদিন ধরে চলে এই গ্রামের পুজো। বিশেষত পাহাড়পুর গ্রামের দত্তদের বাড়ী থেকেই এই পুজোর সূত্রপাত। জানা গেছে,  এই গ্রামের বাবা ধর্মরাজ রানীগঞ্জ এর থেকে এই গ্রামে এসে বিরাজমান করেছেন। বহু বছর পূর্বে গ্রামের কোন এক বৃদ্ধা মাঠে মহিষ চড়াতে গিয়ে জলে ডুবে যায় তখন ঐ বৃদ্ধ পরিবারের কাউকে স্বপ্নাদেশ দেয় যে পাহাড়পুর গ্রামের নিচের দিকে একটি পুকুরে বাবা ধর্মরাজ রয়েছে সেখানে ডাবর গ্রামের পুরোহিত নিয়ে ঢাক ঢোল সহকারে যেন বাবাকে নিয়ে আসে আর তারপর থেকেই পাহাড়পুর গ্রামে বাবা ধর্মরাজ এর পুজো আর্চা শুরু হয়। প্রথমে তালবাগড়া দিয়ে আশ্রিত মন্দিরে বাবাকে বিরাজমান করা হয়েছিল। তবে ধীরে ধীরে মন্দির তৈরি করা হয় এবং এই মন্দিরে বাবাকে রেখে পুজো করা হয়। পুজোর এই কটা দিন  দূর দূরান্ত থেকে বহু মানুষ ছুটে আসেন পুজো দেখতে। তাছাড়া প্রথা অনুযায়ী পুজোর দিন পাঁঠাবলি করা হয়। এবং ভক্তরা নির্জলা উপবাস করে থাকে। এবং এই নির্জলা উপবাস করেই তারা লোটন, কাঁটা লোটন, দন্ডি দেওয়া বা দেহের বিভিন্ন অংশে ছুঁচ ফোঁড়া, আগুনে ঝাঁপ দেওয়া করে বাবা ধর্মরাজের পুজো পালন করেন। 

Post a Comment

0 Comments