চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # মাধ্যমিকে যুগ্ম প্রথম বর্ধমান সিএমএস হাই স্কুলের রৌনক মন্ডল এবং বাঁকুড়ার রাম হরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের অর্ণব ঘড়াই # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়মাধ্যমিকের পর উচ্চমাধ্যমিকেও তাক লাগালো কাটোয়ার অভীক পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন

ব্যবসায়ীর ৪ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা ছিনতাই


 

ব্যবসায়ীর ৪ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা ছিনতাই 


কাজল মিত্র, বরাকর : আসানসোলের কুলটি থানার বরাকরের এক ভোজ্যতেল ব্যবসায়ীর ৪ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। জানা যায় সোমবার দুপুরে এক ব্যবসায়ী ঝাড়খণ্ড এর চিরকুন্ডার একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কে টাকা জমা দিতে যাওয়ার সময় বরাকর সেতুর উপরে এই টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনাটি ঘটে। খবর পেয়ে চিরকুন্ডা থানার পুলিশ এলাকায় ছুটে আসে। তারা ব্যবসায়ীর কাছ থেকে গোটা ঘটনাটি শুনে তদন্তে নামে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বরাকরের স্টেশন রোডের ভোজ্য তেল ব্যবসায়ী সনু ডালমিয়া ও তার দোকানের কর্মী গোপাল প্রসাদ মোটর বাইকে চড়ে সোমবার দুপুর সাড়ে বারোটা নাগাদ বরাকর সেতু দিয়ে ৪ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা নিয়ে চিরকুন্ডার একটি রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাঙ্কে  টাকা জমা দিতে যাচ্ছিলেন। কিন্তু সেতুর উপরে যেখানে বাংলার সীমানা শেষ ও ঝাড়খন্ড শুরু হয়েছে সেই জায়গাতেই বরাকরের দিক থেকেই তাদের পিছনে পিছনে আসা আর একটি বাইকে থাকা তিন জন দুষ্কৃতি তাদের সামনে এসে দাঁড়ায়। ব্যবসায়ী ও তার কর্মী কিছু বুঝে উঠার আগেই তাদের কাছ থেকে টাকার ব্যাগ ছিনতাই করার চেষ্টা করে। সনু ডালমিয়া ও গোপাল প্রসাদ বাধা দেন। এরপর গোপাল প্রসাদকে মারধর শুরু করে ও সনু ডালমিয়ার কাছ থেকে টাকার ব্যাগটি ছিনিয়ে নেয়। ইতিমধ্যে আরো একটি বাইকে করে একজন সেখানে আসে। এরপর দুটি বাইকে করে তারা পালিয়ে চলে যায়। 

ঘটনাস্থল বাংলা ঝাড়খন্ড সীমানায় হওয়ায় খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে চিরকুন্ডা থানার পুলিশ ইন্সপেক্টর জিতেন্দ্র কুমার ছুটে আসেন। পুলিশ জানায়, যাদের ছিনতাই হয়েছে তাদের বরাকর থেকেই অনুসরণ করেছিল ছিনতাইকারীরা। ছিনতাইকারীদের বাইক তাদের পিছনে পিছনে আসছিল। ছিনতাইয়ের পরেও তারা আবার ওই রাস্তা দিয়েই পালিয়েছে বলে পুলিশের ধারণা। গোপাল প্রসাদ বলেন, দূষ্কৃতিদের হাতে কোন আগ্নেয়াস্ত্র ছিল না। কিন্তু বারবার বলছিল বাইকে রিভলবার আছে নিয়ে আসার জন্য। তারা সংখ্যায় বেশি থাকায় আমরা তেমনভাবে কিছু করতে পারিনি। প্রায়ই এইভাবে টাকা নিয়ে তারা সেতু পেরিয়ে চিরকুন্ডার একটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কে জমা দেন । এদিনও সেইভাবেই টাকা জমা দিতে যাবার পথে এমন ঘটনা ঘটলো।


Post a Comment

0 Comments