চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # মাধ্যমিকে যুগ্ম প্রথম বর্ধমান সিএমএস হাই স্কুলের রৌনক মন্ডল এবং বাঁকুড়ার রাম হরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের অর্ণব ঘড়াই # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়মাধ্যমিকের পর উচ্চমাধ্যমিকেও তাক লাগালো কাটোয়ার অভীক পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন

জামালপুর ব্লক জুড়ে প্রজাতন্ত্র দিবস পালিত



 

জামালপুর ব্লক জুড়ে প্রজাতন্ত্র দিবস পালিত 


অতনু হাজরা, জামালপুর :  সারা দেশে সম্মান ও শ্রদ্ধার সঙ্গে পালিত হলো প্রজাতন্ত্র দিবস। আজকের দিনেই স্বাধীন, সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে ভারতবর্ষ আত্মপ্রকাশ করেছিল। অর্থাৎ আজকের দিনেই ১৯৫০ সালে ভারতের সংবিধান কার্যকর করা হয়। সমগ্র জেলার সাথে জামালপুরেও পালন করা হলো প্রজাতন্ত্র দিবস। ব্লকের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে, ব্লক অফিসে, থানায়, হাসপাতাল সহ নানা জায়গায় পতাকা উত্তোলন করা হয়। 

বেরুগ্রাম আচার্য্য গিরিশ চন্দ্র বসু বিদ্যাপীঠে পতাকা উত্তোলন করেন শিক্ষক বিপ্লব ঘোষ। ছিলেন শেখ নূর আলী, দেবাশীষ মালিক, সোমা হালদার, মোহাম্মদ দেওয়ান সহ অন্যান্য শিক্ষকরা। ব্লক অফিসে পতাকা উত্তোলন করেন ব্লকের বিডিও শুভঙ্কর মজুমদার। 


আজ এই অনুষ্ঠানে ব্লকের জোতচাঁদ গ্রামের একজন ছাত্র অর্ঘ্য ধারা মাধ্যমিক পরীক্ষায় অসাধারণ ফল করায় তাঁকে জেলা শাসকের স্বাক্ষরিত একটি শংসাপত্র, একটি গোল্ড মেডেল ও একটি বই তুলে দেওয়া হয়। জামালপুর থানায় প্যারেড সহযোগে পতাকা উত্তোলন করা হয়। পতাকা উত্তোলন করেন সেকেন্ড অফিসার রতন দাস।

 জামালপুর ব্লক তৃণমূল পার্টি অফিসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন বিধায়ক অলোক কুমার মাঝি। ছিলেন ছাত্র পরিষদের ব্লক সভাপতি বিট্টু মল্লিক সহ অন্যান্যরা। জামালপুর ব্লকেরই একেবারে শেষ প্রান্তে হুগলি বর্ডারে তিলকুড়ি গ্রামে একটি স্বচ্ছ সেবী সংস্থা, 'নাগরিক জাগরণ ঐক্য'। তাঁরা আজকের দিনে এলাকার দুঃস্থ প্রায় ৪০ জন মানুষের হাতে শীতের কম্বল ও খাদ্য সামগ্রী তুলে দেন। উপস্থিত ছিলেন বিধায়ক অলোক কুমার মাঝি। তাঁরা এবছরই প্রথম জাগৃতি নামে একটি পত্রিকা প্রকাশ করে বিধায়কের হাত দিয়ে। তাঁদের কাজে খুশি হয়ে বিধায়ক তাদের ৫ টি কম্বল প্রদান করেন।

আর যে সমস্ত স্থানীয় লেখকরা এই পত্রিকায় লিখেছেন তাঁদের মধ্যে থেকে সেরা তিনজন বেছে নিয়ে তাঁদের জন্য ১৫০০ টাকা পুরস্কার দেন। বিধায়কের ভূমিকায় খুবই খুশি এলাকার মানুষ।


Post a Comment

0 Comments