চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # মাধ্যমিকে যুগ্ম প্রথম বর্ধমান সিএমএস হাই স্কুলের রৌনক মন্ডল এবং বাঁকুড়ার রাম হরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের অর্ণব ঘড়াই # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়মাধ্যমিকের পর উচ্চমাধ্যমিকেও তাক লাগালো কাটোয়ার অভীক পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন

কোভিড পরিস্থিতিতে বৃহন্নলাদের নতুন বস্ত্র প্রদান


 

কোভিড পরিস্থিতিতে বৃহন্নলাদের নতুন বস্ত্র প্রদান 


অতনু হাজরা, জামালপুর :  গত দুবছর ধরে কোভিড পরিস্থিতিতে অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়াচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির পূর্ব বর্ধমান জেলা শাখা। দুয়ারে শিক্ষক নামে তাঁরা অসহায় মানুষদের খাদ্যসামগ্রী দিচ্ছেন। আসন্ন বাঙালিদের বড় উৎসবে বৃহন্নলতাদের সাহায্য করতে এগিয়ে এলো পশ্চিমবঙ্গ মাধ্যমিক তৃণমূল শিক্ষক সংগঠনের জামালপুর ব্লক শাখা। তাঁরা আজ ৫০ জন বৃহন্নলাদের হাতে দুর্গা পূজা উপলক্ষ্যে নতুন শাড়ি তুলে দিলেন। অনুষ্ঠানটি হয় জামালপুর ব্লক  তৃণমূল ব্লক পার্টি অফিসে। উপস্থিত ছিলেন বিধায়ক অলোক কুমার মাঝি, যুব সভাপতি ভুতনাথ মালিক, শিক্ষক নেতা দেবব্রত মুখার্জী, প্রবীর নায়েক, পীযুষ দাস, কৃষ্ণ সাহা সহ অন্যান্যরা।

 বিধায়ক অলোক মাঝি পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতিকে ধন্যবাদ জানান যে পুরো কোভিড কালে তারা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ভাবে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন বলে। দুর্গা পুজো সকল বাঙালির বড় উৎসব সেখানে সকলেই আনন্দ উপভোগ করেন। কিন্তু অনেক অসহায় মানুষ যাদের পুজোয় নতুন বস্ত্র কেনার সামর্থ থাকে না তাদের পাশে দাঁড়ানোই আসল কাজ আর সেটাই আজ করেছেন এই শিক্ষকরা। এই তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের সেভাবে কাজ নেই দুবছর ধরে। তাদের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের হাতে নতুন বস্ত্র তুলে দেওয়ার জন্য তিনি শিক্ষকদের ধন্যবাদ জানান। 

ভুতনাথ মালিক বলেন, সত্যি এটি একটি প্রশংসনীয় কাজ। এই অসহায় মানুষগুলোর সাথে পুজোর আনন্দ ভাগ করে নিলেন শিক্ষকরা। শিক্ষক নেতা দেবব্রত মুখার্জী বলেন এই সম্প্রদায়ের মানুষরা মূলত বাড়ি বাড়ি গিয়ে বাচ্চাদের নাচিয়ে রোজগার করেন কিন্তু বিগত দু বছর তাদের সেই কাজ বন্ধ। তাই তাঁরা তাদের সংগঠনের  পক্ষ থেকে তাদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করলেন। পুজোর সময় এই প্রীতি উপহার পেয়ে খুশি এই তৃতীয় লিঙ্গের মানুষরা।


Post a Comment

0 Comments