চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

হাওড়া-নিউ জলপাইগুড়ি বন্দে ভারত এক্সপ্রেসের যাত্রার সূচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী # ফুটবলে আর্জেন্টিনার বিশ্বজয়, ফ্রান্স কে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ান মেসি # জয়েন্ট এন্ট্রান্স (মেইন) এর প্রথমভাগের পরীক্ষা ২৪ জানুয়ারি থেকে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত # বর্ধমান জেলা রাইস মিলস অ্যাসোসিয়েশন এর শতবর্ষ পূর্তি উদযাপন # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায় #সরকারি কর্মচারীদের সুখের দিন শেষ, শ্রম কোড চালু হতে চলেছে সমগ্র ভারতে # পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার # #পূর্ব বর্ধমান জেলায় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ এর উদ্যোগে খালবিল ও চুনোমাছ উৎসবের উদ্বোধন ২৫ ডিসেম্বর

অধ্যাপক অংশুমান কর নির্দোষ প্রমাণিত


 

অধ্যাপক অংশুমান কর নির্দোষ প্রমাণিত


ডিজিটাল ডেস্ক রিপোর্ট, সংবাদ প্রভাতী : অধ্যাপক অংশুমান কর নির্দোষ। কলকাতা হাইকোর্ট এমনটাই রায় দিয়েছে। যার প্রেক্ষিতে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাপক ডঃ অংশুমান কর এর উপর থেকে সমস্ত রকম নিষেধাজ্ঞা তুলে নিল। উল্লেখ্য গতবছর বিশ্ববিদ্যালয়ের এক পাস আউট ইংরেজির ছাত্রীকে ডঃ কর হেনস্থা করেছেন বলে অভিযোগ আনে হেড, ছাত্র সংসদ ও কয়েকজন বুদ্ধিজীবী। যার ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ডঃ কর-কে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা বিষয়ক কার্যক্রম থেকে সরিয়ে দেয়। যদিও সেই সময়ে অধ্যাপক অংশুমান কর তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যা এবং উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে জানিয়েছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তার কথায় আমল না দেওয়ায় তিনি কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন।

 প্রায় এক বছর পর কলকাতা হাইকোর্টে এই মামলা চলার পর চলতি মাসের গোড়ার দিকে কলকাতা হাইকোর্ট তাঁকে নির্দোষ ঘোষণা করে। এরপরই অধ্যাপক কর বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে আবেদন করেন তার উপর থেকে যেন সমস্ত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হয়। সেই আবেদনের পর বুধবার বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মসমিতির বৈঠকে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজির অধ্যাপক ডঃ অংশুমান কর এর উপর থেকে একাডেমিক ও পরীক্ষার কাজকর্ম সংক্রান্ত সমস্ত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডঃ নিমাই চন্দ্র সাহা সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আদালতের রায় মেনে কাজ করবেন।

অধ্যাপক ডঃ অংশুমান কর বলেন, সুবিচার পাবার আশায় কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলাম। কারণ হাইকোর্টের রায়ের উপর আমার আস্থা আছে। মামলার রায় ঘোষণার পর তিনি কলকাতা হাইকোর্ট কে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। এদিকে অধ্যাপক কর আরো বলেন, আমি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের বিবেচনাবোধের উপর আস্থা রেখে ছিলাম। আমি খুশি। এবার দ্রুত একাডেমিক ও পরীক্ষা সংক্রান্ত ও গবেষণার কাজে ফিরতে চাই।

Post a Comment

0 Comments