Scrooling

নরেন্দ্র মোদীর মন্ত্রীসভায় পশ্চিমবঙ্গ থেকে শপথ নিলেন ডঃ সুকান্ত মজুমদার ও শান্তনু ঠাকুর # অ্যালার্জিজনিত সমস্যায় ভুগছেন ? বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডাঃ অয়ন শিকদার আগামী ২১ জুলাই বর্ধমানে আসছেন। নাম লেখাতে যোগাযোগ 9734548484 অথবা 9434360442 # আঠারো তম লোকসভা ভোটের ফলাফল : মোট আসন ৫৪৩টি। NDA - 292, INDIA - 234, Others : 17 # পশ্চিমবঙ্গে ভোটের ফলাফল : তৃণমূল কংগ্রেস - ২৯, বিজেপি - ১২, কংগ্রেস - ১

ধ্বসে একাধিক বাড়িতে ফাটল, এলাকা পরিদর্শন করলেন পুর প্রশাসক


 

ধ্বসে একাধিক বাড়িতে ফাটল, এলাকা পরিদর্শন করলেন পুর প্রশাসক 


কাজল মিত্র, আসানসোল : পশ্চিম বর্ধমান জেলার আসানসোলের কালাপাহাড়ির ঘুষিক এলাকায় ধসের ঘটনায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।এই ধসের জেরে একাধিক বাড়িতে ফাটল দেখা দিয়েছে। এমনকি বেশ কয়েকটি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এই ঘটনার পর সোমবার খতিগ্রস্থ বাড়ির মানুষেরা বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন।জানা গিয়েছে, ইসিএলের শ্রীপুর এরিয়ার ঘুষিক ৩ নং কয়লাখনি সংলগ্ন এলাকায় একটি বিকট শব্দ হয়। এরপর দেখা যায় একাধিক বাড়িতে ফাটল ও বেশ কয়েকটি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এমনকি এলাকার যাতায়াতের রাস্তাতেও ফাটল দেখা দিয়েছে। এই ঘটনার পর এলাকার মানুষেরা আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। তাই তড়িঘড়ি ক্ষতিগ্রস্থ বাড়ির মানুষেরা বাড়ির আসবাবপত্র নিয়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে। এলাকার মানুষদের দাবি অবিলম্বে তাদেরকে পুর্ণবাসন দিতে হবে।

 ঘটনার পরই ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করতে আসেন আসানসোল পৌরনিগমের প্রশাসক অমরনাথ চ্যাটার্জী। সোমবার তিনি ওই এলাকায় গিয়ে পুরো ধ্বস কবলিত এলাকা সরজমিনে পরিদর্শন করেছেন। এদিন পরিদর্শনের পাশাপাশি এলাকার মানুষের সঙ্গে কথা বলেছেন। তিনি জানান,  এলাকার মানুষেরা যাতে পূর্ণবাসন পায় তারজন্য ইসিএলের আধিকারিকের কাছে আবেদন জানিয়েছেন। এদিন এই প্রসঙ্গে আসানসোল পৌরনিগমের প্রশাসক অমরনাথ চ্যাটার্জী বলেন,  তিনি খবর পেয়েই ছুটে আসেন, তিনি এসে দেখেন এই এলাকার মানুষ আতঙ্কিত হয়ে রয়েছে। এব্যাপারে তিনি বলেন, ইসিএল কতৃপক্ষ  এইসকল পরিবারদের ক্ষতিপূরণ এর ব্যবস্থা করুক। তাছাড়া আমরাও পাশে রয়েছি। কবে কতদিন আগে সিপিএম আমলে ইসিএল কতৃপক্ষ এডিডিএ কে টাকা দিয়েছে সেকথা এখন বললে হবেনা এখন ওই ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারদের পাশে থাকতে হবে। তাদের তরফে এখনো পর্যন্ত কাউকে দেখা যায়নি তাই আমরা ছুটে এসেছি কারন আমাদের নেত্রী মমতা ব্যানার্জী সকলের অসুবিধায় পাশে থাকেন। তাদের পক্ষ থেকে ইসিএল আধিকারিক ও কতৃপক্ষ এর সাথে কথা বলা হচ্ছে যাতে দ্রুত ওই পরিবার গুলির ব্যবস্থা করা যায়।