Scrooling

ঘূর্ণিঝড় রিমাল : পূর্ব বর্ধমানে ৪টি ব্লক ক্ষতিগ্রস্ত, মৃত ২ # চুরুলিয়ায় ৫ দিন ব্যাপী নজরুল স্মরণে বর্ণময় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও মেলা # নন্দীগ্রামে বিজেপি সমর্থক খুনে রিপোর্ট চাইলো কমিশন # ১৮ তম লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল জানা যাবে ৪ জুন

পানীয় জল ও রাস্তার শুভ উদ্বোধন করলেন বিধায়ক


 

পানীয় জল ও রাস্তার শুভ উদ্বোধন করলেন বিধায়ক 


কাজল মিত্র, সালানপুর : পশ্চিম বর্ধমান জেলার দেন্দুয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত ন্যাকড়াজড়িয়া হয়ে বাজনভাঙ্গা মহেশপুর পর্যন্ত দুই কিলোমিটার রাস্তার শুভ উদ্বোধন করলেন বারাবনির বিধায়ক বিধান উপাধ্যায়। জেলা পরিষদের ফান্ড থেকে দেড় কোটি টাকা খরচ করে এই রাস্তাটি নির্মিত হয়েছে। শনিবার বিধায়ক ফিতে কেটে এবং নারকেল ফাটিয়ে রাস্তার শুভ উদ্বোধন করেন।এদিন বিধায়ক বিধান উপাধ্যায় এর সাথে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ মহম্মদ আরমান সহ সালানপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি ফাল্গুনী কর্মকার ঘাসি, সহ সভাপতি বিদ্যুৎ মিশ্র এবং সালানপুর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক ভোলা সিং। একই সাথে এদিন ন্যাকড়া জড়িয়া হয়ে বাজন ভাঙ্গা মহেশপুর পর্যন্ত পানীয় জলের উদ্বোধন করা হয়। নির্বাচনের আগে এসে গ্রামবাসী দের কথা দিয়েছিলেন রাস্তা ও পানীয় জলের ব্যবস্থা করবেন। তাই বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়ে গ্রামবাসী দের দেওয়া কথা পূরণ করলেন বিধায়ক বিধান উপাধ্যায়। 


এদিন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসে বিধায়ক বিধান উপাধ্যায় বলেন, মানুষের জন্য কাজ করা আমার ও দলের নীতি, ভোটের আগে এই গ্রাম গুলিতে এসে গ্রামবাসীদের কথা দিয়েছিলাম তাদের জন্য রাস্তা ও পানীয় জলের ব্যবস্থা করবো।তারই আজ উদ্বোধন করা হলো। তিনি আরো বলেন, দেন্দুয়া গ্রাম পঞ্চায়েত ও সালানপুর গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে হেরেছি, এখানকার মানুষ হয়তো ভেবে ছিলেন দিদির সরকার থাকবে না তাই ভোট দেয়নি। কিন্তু তাদের ধারণা ভুল হয়েছে। আমি উন্নয়ন করতে ভালোবাসি আর যা কথা দিয়ে যাই তা পূরণ করতে ভালোবাসি। তাই হারার পরেও এই গ্রাম গুলিতে উন্নয়নমূলক কাজ করছি এবং আগামী দিনে আরো ভালো কাজ করবো। মানুষ এখন ভুল বুঝতে পেরে তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করছে, আমি তাদেরকে দলে স্বাগতম করছি। আগামী দিনে যদি দেশকে রক্ষা করতে হয় তবে কেন্দ্রে দিদিকে বসাতে হবে। তাছাড়া এদিন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন দেন্দুয়া পঞ্চায়েত প্রধান শিমুলা মারান্ডি, উপপ্রধান রঞ্জন দত্ত, তৃণমূল নেতা মনোজ তেওয়ারী, মবিন খান, বিজয় সিং, নরেন্দ্র খোসলা, শঙ্কর ঘোষ, বিষ্ণু বাহাদুর, চন্দন রজক, রামকুমার মিশ্র সহ আরো অনেকে।