চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # মাধ্যমিকে যুগ্ম প্রথম বর্ধমান সিএমএস হাই স্কুলের রৌনক মন্ডল এবং বাঁকুড়ার রাম হরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের অর্ণব ঘড়াই # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়মাধ্যমিকের পর উচ্চমাধ্যমিকেও তাক লাগালো কাটোয়ার অভীক পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন

বর্ষণে বিস্তীর্ণ এলাকা জলমগ্ন, ভেঙেছে সেতু, সংকটে বহু মানুষ


 

বর্ষণে বিস্তীর্ণ এলাকা জলমগ্ন, ভেঙেছে সেতু, সংকটে বহু মানুষ


কাজল মিত্র, পশ্চিম বর্ধমান : একটানা চার দিনের বর্ষণে পশ্চিম বর্ধমান জেলার বিভিন্ন এলাকা জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। বার্নপুরের রিভারসাইডে অস্থায়ী সেতু ভেঙে যাওয়ার পর নৌকার মাধ্যমে দুই জেলার মানুষ পারপার করছেন। জানা গিয়েছে বার্নপুরের রিভারসাইড এলাকায় দামোদর নদীর উপর একটি অস্থায়ী সেতু ছিল। কিন্তু বৃহস্পতিবার দামোদর নদীর জলস্তর বেড়ে যাওয়ার কারণে অস্থায়ী সেতুটি ভেঙে যায়। এরফলে বাঁকুড়া ও পশ্চিম বর্ধমান এই দুই জেলার মানুষদের যাতায়াত বন্ধ হয়ে যায়। ফলে মানুষ সম্যসায় পড়েছেন। তবে শুক্রবার বাঁকুড়া থেকে বহু মানুষ নৌকা করে আসানসোল, বার্নপুরে কর্মসূত্রে এসেছেন।



এদিকে আসানসোল রেলপাড়ের বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাত থেকেই জল বাড়তে শুরু করে গাঁড়ুই নদীতে এবং ওই নদীর জল দু'কূল ছাপিয়ে রেল পাড়ের অন্ততপক্ষে ৬ টি ওয়ার্ড জলমগ্ন হয়ে পড়েছে। প্রায় ২০০ টি পরিবার ঘর ছাড়া বলে জানা গিয়েছে। তাদেরকে এলাকার স্কুল এব কমিউনিটি সেন্টারে রাখা হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের মতে প্রতিবছরই গাঁড়ুই নদীতে প্লাবন আসে এবং এর কোন স্থায়ী ব্যবস্থা করা হয়নি।  নদীতে দীর্ঘদিন ধরেই আবর্জনা জমে তার নাব্যতা হারিয়েছে। অন্যদিকে বেআইনি নির্মাণের কারণে নদী ছোট হয়ে এসেছে ফলে বর্ষায় জল বাড়লেই জল উপচে পড়ে এবং এলাকাকে প্লাবিত করে।



আসানসোল ইসিএলের নরসমুদা কয়লাখনিও জলমগ্ন। এর জেরে খনিতে কোনো শ্রমিক নামতে পারেননি। কয়লা উত্তোলন বন্ধ হয়ে যায়। জানা গিয়েছে নরসমুদা কয়লাখনি সংলগ্ন এলাকায় প্রচুর অবৈধ কয়লা খনি রয়েছে। টানা বৃষ্টির কারণে সেই সমস্ত অবৈধ কয়লা খনির মুখ দিয়ে নরসমুদা কয়লাখনিতে জল ঢুকেছে। ঘটনাস্থলে ইসিএলের আধিকারিকরা পর্যবেক্ষণ করেছেন।




Post a Comment

0 Comments