চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # মাধ্যমিকে যুগ্ম প্রথম বর্ধমান সিএমএস হাই স্কুলের রৌনক মন্ডল এবং বাঁকুড়ার রাম হরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের অর্ণব ঘড়াই # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়মাধ্যমিকের পর উচ্চমাধ্যমিকেও তাক লাগালো কাটোয়ার অভীক পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন

নদী সংস্কারের দাবিতে বিক্ষোভ ও স্মারকলিপি


 

নদী সংস্কারের দাবিতে বিক্ষোভ ও স্মারকলিপি

 

 কাজল মিত্র, আসানসোল : পশ্চিম বর্ধমানে গারুই নদীর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও দখলমুক্তি করার দাবিতে বিক্ষোভ আন্দোলনের সঙ্গে স্মারকলিপি দিল কংগ্রেস। বৃহস্পতিবার আসানসোল উত্তর ব্লক কংগ্রেসের পক্ষ থেকে পৌর নিগমের সামনে একটি বিক্ষোভ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। কর্পোরেশনের প্রশাসক অমরনাথ চ্যাটার্জীর অনুপস্থিতিতে, প্রধান ক্লার্ক বীরেন অধিকারী'র কাছে স্মারকলিপি জমা দেয় কংগ্রেস নেতৃত্ব। আসানসোল দক্ষিণ ব্লকের সভাপতি শাহ আলম বলেন, প্রতিবছর বর্ষার সময় রেলপাড় এলাকায় কয়েকশো ঘরে জল প্রবেশ করে। রেলপাড় এলাকায় বন্যার আকার ধারণ করে। তিনি আরও বলেন, জলের প্রবাহের কারণে একটি যুবক মারা যায়। 




 জিতেন্দ্র তিওয়ারি যখন পৌর কর্পোরেশনের মেয়র ছিলেন, তখন কংগ্রেসের পক্ষ থেকে একটি স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছিল। স্মারকলিপিতে বলা হয়েছিল যে নদীর তীরে দখল ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার অভাবে বর্ষার সময় বন্যার পরিস্থিতি তৈরি হয় জিতেন্দ্র তিওয়ারি এ বিষয়ে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য কর্পোরেশনের একজন কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দিয়েছিলেন, কিন্তু অতীতে অবিরাম বৃষ্টিপাতের কারণে কোনও কাজ না হওয়ায় রেলপাড় এলাকায় শত শত বাড়িতে নদীর জল প্রবেশ করে এবং এক শিশুও ডুবে মারা গিয়েছিল। একই সঙ্গে, তিনি অভিযোগ করেন যে তৃণমূল কংগ্রেস কাউন্সিলর সরকারী জমি দখল করে একটি বাড়ি এবং দলীয় কার্যালয় করেছে। এর সাথে, কয়েক ডজন সমর্থক গারুই নদীর তীরে বাড়িঘর তৈরি করেছেন, যার ফলে গারুই নদী ক্রমশ সরু হয়ে বন্যার আকার নিচ্ছে। তিনি এও বলেন যে গারুই নদীর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা এবং দখল অপসারণ করা না হলে বর্ষার সময়, রেলপাড় এলাকায় অবস্থিত ঘরগুলিতে জল ঢুকবে এবং শিশু মৃত্যুর মতো ঘটনা ঘটবে। গারুই নদীর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও দখল অপসারণ না করা হলে আগামী দিনগুলিতে কংগ্রেসের পক্ষ থেকে একটি বড় আন্দোলন করা হবে।




 এদিনের বিক্ষোভ আন্দোলনে উত্তর ব্লক কংগ্রেসের সভাপতি এস এম মোস্তফা, প্রসেনজিৎ পৈতান্দী, মামুন রশিদ, সৌভিক মুখার্জি, মোহাম্মদ শাকির, মোহাম্মদ রাকিব, সাথী মুখার্জি সহ অন্যান্য কর্মী-সমর্থকরা উপস্থিত ছিলেন।




Post a Comment

0 Comments