চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

শতবর্ষে বর্ধমান ডিস্ট্রিক্ট রাইস মিলস অ্যাসোসিয়েশন # উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়সরকারি কর্মচারীদের সুখের দিন শেষ, শ্রম কোড চালু হতে চলেছে সমগ্র ভারতে পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #পূর্ব বর্ধমান জেলায় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ এর উদ্যোগে খালবিল ও চুনোমাছ উৎসবের উদ্বোধন ২৫ ডিসেম্বর

সম্প্রীতির বার্তায় রক্তদান শিবির


 

সম্প্রীতির বার্তায় রক্তদান শিবির


অতনু ঘোষ, মেমারি : "একের রক্ত অন্যের জীবন, রক্তই হোক আত্মার বাঁধন" এই স্লোগানকে সামনে রেখে পূর্ব বর্ধমান জেলার মেমারি সম্মিলনী ক্লাবের উদ‍্যোগে ও কলকাতার অশোক ল‍্যাবরেটরিজের সহযোগিতায় করোনা বিধি কে মান্যতা দিয়ে মেমারি শহরের সুলতানপুরে আয়োজিত হলো স্বেচ্ছায় রক্তদান শিবির। মেমারি সম্মিলনী সারা বছরই কিছু না কিছু সামাজিক কাজের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ায় এবং প্রতি বছরই স্বেচ্ছায় রক্তদান শিবিরের আয়োজন করে। 




এ বছর তাদের রক্তদান শিবির সপ্তম বর্ষে পদার্পণ করল। আজকের এই রক্তদান শিবির থেকে এক সম্প্রীতির বার্তাও দেওয়া হলো। আজকের এই রক্তদান শিবিরের প্রথম রক্তদাতা একজন হিন্দু ব্রাহ্মণ ঘরের মহিলা যখন রক্ত দিচ্ছেন ঠিক সেই সময় তার পাশে দাঁড়িয়ে ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করতে দেখা গেল মুসলমান ধর্ম গুরু কে। এই ছবি দেখে এটা প্রমাণিত যে, 'মেমারি সম্মিলনী' ক্লাব আজকের এই রক্তদান শিবির আয়োজন করে শুধুমাত্র রক্তের ঘাটতি মেটাবার চেষ্টাই করেনি তার সাথে সাথে এক সম্প্রীতির বার্তা দিয়েছে সাধারণ মানুষকে। 




এদিন রক্তদাতাদের উৎসাহিত করতে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সমাজসেবী নিত‍্যানন্দ ব‍্যানার্জী, পঞ্চায়েত সমিতির কর্মাধ‍্যক্ষ সনাতন হেমব্রম, শিক্ষক নেতা মৃন্ময় ঘোষ, সংখ‍্যা লঘু সেলের শহর সভাপতি ফারুক আব্দুল্লা, ফাত্তার কয়াল, মেমারি ব‍্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক রামকৃষ্ণ হাজরা, সমাজসেবী তুহিন যশ, খাঁড়ো যুবক সংঘের সেখ সবুরউদ্দিন, ক্লাব সভাপতি সেখ সোভান, সম্পাদক সেখ সুরজ সহ বিশিষ্ট ব‍্যক্তিবর্গ। মহিলা ও পুরুষ সহ মোট ১০০ জনের বেশি রক্তদাতা রক্তদান করেন। মহিলা রক্তদাতার সংখ্যা ছিল চোখে পড়ার মতো।




Post a Comment

0 Comments