চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # মাধ্যমিকে যুগ্ম প্রথম বর্ধমান সিএমএস হাই স্কুলের রৌনক মন্ডল এবং বাঁকুড়ার রাম হরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের অর্ণব ঘড়াই # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়মাধ্যমিকের পর উচ্চমাধ্যমিকেও তাক লাগালো কাটোয়ার অভীক পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন

লোকশিল্পীর বাড়িতে হামলা, প্রাণে মারার হুমকি


 

লোকশিল্পীর বাড়িতে হামলা, প্রাণে মারার হুমকি


সেখ সামসুদ্দিন, মন্তেশ্বর : পশ্চিমবঙ্গ সরকার স্বীকৃত লোকশিল্পী রফিকুল ইসলাম খান এর বাড়িতে হামলা। অভিযোগ রাতের অন্ধকারে কয়েকজন হঠাৎ তার বাড়িতে ঢুকে ভাঙচুর করে। শিল্পীকে প্রাণে মেরে ফেলার চেষ্টা করে। বরাত জোরে মন্তেশ্বর থানার ওসি সৈকত মন্ডল বিশাল পুলিশ বাহিনী ও র‍্যাফ নিয়ে পৌঁছালে প্রাণে বাঁচেন লোকশিল্পী রফিকুল। আসলে রফিকুল ইসলাম খান এলাকার স্বঘোষিত তৃণমূল নেতা লালন সেখ এর দুর্নীতির বিষয়ে একাধিক বার প্রতিবাদ জানিয়েছেন এবং বঞ্চিত পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে সহযোগিতা করায় ওদের চক্ষুশূল হয়ে উঠেছেন। তাঁর অভিযোগ সেই লালনের দলবল-ই বাড়িতে হামলা করতে এসেছিল। তিনি লালন সেখ সহ হামলাকারীদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ জানিয়েছেন।




বাংলার সালটা ছিল ২০০৯, ১লা জানুয়ারী তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে অনুষ্ঠানে গরীব দরদী লড়াকু নেত্রী মমতা ব্যানার্জীকে নিয়ে মঞ্চে সঙ্গীত পরিবেশন করতে এক জন সংগীত শিল্পী চোখে পড়ে তখন তার পরিচয় কেউই জানতো না। তার পর বিভিন্ন ছোট খাটো অনুষ্ঠানে তাকে দেখা যায়। হঠাৎ ২০১১ সালে বাংলায় রাজনৈতিক পরিবর্তন ঘটার পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় পানাগড়ে প্রথম মাটি উংসবে দেখা গিয়েছিল সেই শিল্পীকে। উল্লেখ্য পশ্চিমবঙ্গ সরকারের জনপ্রিয় প্রকল্প কন‍্যাশ্রী ঘোষণা করার পর অবিভক্ত বর্ধমান জেলা তথ‍্য ও সংস্কৃতি দপ্তর বিভিন্ন স্কুলে মোটিভেশনাল প্রোগ্রাম করলে সেই অনুষ্ঠানেও কন‍্যাশ্রীর গান করতে দেখা যায়। তারপরেই সরকার লোকপ্রসার প্রকল্প ঘোষণা করেন। অন‍্যান‍্য শিল্পীদের নথিভুক্ত করার আবেদন নিয়ে অফিসে যাতায়াতের সুবাদে সেই প্রকল্পে কর্তব‍্যরত অফিসার বাউল শিল্পী হিসাবে নাম নথিভুক্ত করে সরকারি লোকশিল্পীর স্বীকৃতি দেন। তারপর সেই যে লোকপ্রসার প্রকল্পের মাধ্যমে সরকারি উণ্নয়ন মূলক প্রকল্পের গান, মুখ্যমন্ত্রীর জীবনি নিয়ে গান, গেয়ে ব্লক থেকে জেলা, জেলা থেকে রাজ্য, বিভিন্ন মঞ্চে এমন কি কয়েকবার মুখ্যমন্ত্রীর মঞ্চেও গান গেয়ে সাধারণ মানুষের মনে জায়গা করে নেন। তারপর বিভিন্ন সাংসদ, মন্ত্রী, বিধায়কদের নানান অনুষ্ঠানে সরকারি নথিভুক্ত শিল্পী হিসাবে সারা বাংলা জুড়ে সরকারি প্রচার করতে দেখা যায় এবং নেতা মন্ত্রীদের স্নেহের পাত্র হয়ে ওঠেন। তৃণমূল কংগ্রেস তৃতীয় বারের জন্য ক্ষমতায় আসার পর সেই লোকশিল্পীর বাড়িতেই হামলা করায় স্তম্ভিত লোকশিল্পী মহল। অবিলম্বে দোষীদের গ্রেফতার করে শাস্তির দাবি উঠেছে।




Post a Comment

0 Comments