Scrooling

নরেন্দ্র মোদীর মন্ত্রীসভায় পশ্চিমবঙ্গ থেকে শপথ নিলেন ডঃ সুকান্ত মজুমদার ও শান্তনু ঠাকুর # অ্যালার্জিজনিত সমস্যায় ভুগছেন ? বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডাঃ অয়ন শিকদার আগামী ২১ জুলাই বর্ধমানে আসছেন। নাম লেখাতে যোগাযোগ 9734548484 অথবা 9434360442 # আঠারো তম লোকসভা ভোটের ফলাফল : মোট আসন ৫৪৩টি। NDA - 292, INDIA - 234, Others : 17 # পশ্চিমবঙ্গে ভোটের ফলাফল : তৃণমূল কংগ্রেস - ২৯, বিজেপি - ১২, কংগ্রেস - ১

বাংলার প্রথম চার দফা ভোটেই বিজেপি'র সেঞ্চুরি হয়েগেছে : নরেন্দ্র মোদী

 



বাংলার প্রথম চার দফা ভোটেই বিজেপি'র সেঞ্চুরি হয়েগেছে : নরেন্দ্র মোদী


ডিজিটাল ডেস্ক রিপোর্ট, সংবাদ প্রভাতী : প্রথম চার পর্বেই বাংলার মানুষ দিদির বিদায় নিশ্চিত করেছেন। নন্দীগ্রামে বাংলার মানুষ ক্লিন বোল্ড করে দিয়েছে। সোমবার বর্ধমানের তালিতের কাছে সাই কমপ্লেক্সে নির্বাচনী জনসভায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এই কথাগুলো বলেন। এই প্রথম পূর্ব বর্ধমান জেলায় এলেন মোদী। এদিনের জনসভায় তিন সাংসদ এস এস আহলুওয়ালিয়া, সুনীল মণ্ডল ও সৌমিত্র খাঁ উপস্থিত ছিলেন। ছিলেন বর্ধমান দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী সন্দীপ নন্দী, বর্ধমান উত্তর বিধানসভা কেন্দ্রের প্রার্থী রাধাকান্ত রায় সহ জেলার অন্যান্য বিধানসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থীরা। এর মধ্যে আউশগ্রামের সাধারণ মেয়ে কলিতা মাঝিকে বারবার পরিচয় করিয়ে দেন।




প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বক্তব্য রাখতে গিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে নাম না করে দিদি, ও দিদি বলে কটাক্ষ করেন। কুচবিহারের প্রসঙ্গ টেনে বলেন, দুদিন আগে যারা মারা গেছেন তারাও তো কোনো মায়ের সন্তান। মা মাটি আর মানুষ দিদির আমলে বারবার নির্যাতিত হয়েছে। তৃণমূল আমলের এটাই অসহনীয়তা।

নরেন্দ্র মোদী আরও বলেন, বাংলার অর্ধেক নির্বাচনেই টি এম সি সাফ হয়ে গেছে। চার দফায় বিজেপির সিটের সেঞ্চুরি হয়ে গেছে। ওদের সাথেই খেলা হয়ে গেছে। বাংলার মানুষরা দিদিকে ক্লিন বোল্ড করে দিয়েছে। দিদি পার্টির অধিনায়কত্ব ভাইপো কে দিতে চেয়েছিল। দিদির পুরো টিমকে বাংলার লোক বাইরে করে দিয়েছে। দিদি আপনি একবার গেলে কখনো ফেরত আসবেন না। টিএমসির অনেক বড় হার হতে চলেছে। দিদি নিজেকে রয়েল বেঙ্গল টাইগার বলেন। ওনার লোকেরা অন্য জাতের লোকেদের ভিখারি বলে। দিদি দলিত, সিডুলকাস্টদের অপমান করে অনেক বড় পাপ করেছেন, ভুল করেছেন। দিদির কাছের মানুষরা বলছে বিজেপিকে ভোট দিলে উঠিয়ে বাইরে ফেলে দেবে। দিদি কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে নিজের কর্মীদের তাতাচ্ছেন। আপনি রাগ দেখালে,  খিস্তি করলে আমাকে করুন। আপনার অহংকার বাংলার মানুষ বরদাস্ত করবে না। বাংলাকে আর দিদির প্রশাসন চায়না। বাংলা আসল পরিবর্তন চায়। বাংলা বিকাশ, শিক্ষা, শিল্প, নারি শিক্ষা,  ভয়মুক্ত পরিবেশ, বাংলা চায় বিজেপি সরকার। গত দশ বছর সরকার চালিয়েছে। এখন মানুষ মোদিকে চায়। বাংলায় দিদির প্রশাসন অনেক গরবর করেছে। সরকারের কাজ লোকের ভাল করা, এখানকার কর্মকর্তারা সব লুটেছে। পুলিশকে তোলাবাজির কাজে লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে। ঘর করলে টিএমসিকে কাট মানি, কেনা বেচা করলে কাটমানি।  নেতারা বড় বড় ঘর বানিয়েছে। বাংলার বিজেপি সরকার আসল পরিবর্তন আনবে। উন্নয়নের পুরো টাকা লোকের কাছে পৌঁছাবে। পুলিশ ও প্রসাশন নিজের নিজের কাজ করবে। কেন্দ্র ও রাজ্যের সরকার একসাথে উন্নয়নের কাজ করবে। বাংলার কৃষকরা সমস্যায় আছে। বাংলায় বিজেপি সরকার আসার পর কৃষকরা বীমা বেশি পাবে। পি এম কিষান সন্মান নিধি বাংলায় চালু করতে দেয়নি। বাংলায় ২ মে দিদি চলে যাবে। দিদির সরকার গেলেই প্রধানমন্ত্রী কিষান নিধি সন্মান চালু করবে। ১৮ হাজার টাকা কৃষকদের অ্যাকাউন্টে চলে আসবে। ঘরে ঘরে জল পৌঁছনোর জন্য প্রকল্পের টাকা রাজ্য সরকারকে দেওয়া হয়েছিল। রাজ্য সরকার সেই টাকার বড় অংশ খরচ করেনি। বাংলায় বিজেপি সরকারে এলে জলের সমস্যা মেটাবে। 

এদিন সভা শুরু হওয়ার অনেক আগেই সাই কমপ্লেক্স ভর্তি হয়ে যায়। বিপুল সংখ্যক মানুষের উপস্থিতি দেখে বিজেপি নেতা-কর্মীরাও রীতিমত উজ্জীবিত।