চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

শতবর্ষে বর্ধমান ডিস্ট্রিক্ট রাইস মিলস অ্যাসোসিয়েশন # উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়সরকারি কর্মচারীদের সুখের দিন শেষ, শ্রম কোড চালু হতে চলেছে সমগ্র ভারতে পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #পূর্ব বর্ধমান জেলায় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ এর উদ্যোগে খালবিল ও চুনোমাছ উৎসবের উদ্বোধন ২৫ ডিসেম্বর

কেন্দ্রীয় কৃষি বিলের সমর্থনে একুশের লক্ষ্যে জামালপুরে সভা করলেন বিজেপি'র রাজ্য সভাপতি




কেন্দ্রীয় কৃষি বিলের সমর্থনে একুশের লক্ষ্যে জামালপুরে সভা করলেন বিজেপি'র রাজ্য সভাপতি

অতনু হাজরা, জামালপুর : পূর্ব বর্ধমান জেলার জামালপুর হচ্ছে জেলার মধ্যে অন্যতম একটি কৃষি সমৃদ্ধ এলাকা। যেখানে ধান ও আলু প্রচুর পরিমানে উৎপাদন হয়। সেই জামালপুরকেই টার্গেট করে কেন্দ্রীয় কৃষি বিলের পক্ষে প্রচারে নামলেন বিজেপি'র রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি কৃষি বিলের সমর্থনে জামালপুরের সাহাপুরে একটি সভা করেন।সভায় উপস্থিত ছিলেন বিজেপি'র পূর্ব বর্ধমান সদর জেলার সভাপতি সন্দীপ নন্দী, জেলার অন্যতম সাধারণ সম্পাদক রামকৃষ্ণ চক্রবর্তী, সুনীল গুপ্তা, সন্তোষ রায়, জামালপুর বিধানসভার পর্যবেক্ষক জিতেন ডকাল, রাহুল চৌধুরী সহ ৪ জন মন্ডল সভাপতি সহ জেলা ও ব্লকের নেতৃবৃন্দ।  

 

কৃষকদের নিয়ে   সমাবেশ তাই কৃষক সহ প্রচুর বিজেপি কর্মী সমর্থক এদিনের সভায় উপস্থিত ছিলেন। এবং রাজ্য সভাপতির ভোকাল টনিকে বিজেপি কর্মীরা যে বেশ উজ্জীবিত হয়ে উঠেছেন তা ভালোই বুঝতে পারা যাচ্ছিল। দিলীপ ঘোষ তাঁর বক্তব্যে তৃণমূলের দুর্নীতির কথা তুলে ধরেন। তিনি এই সরকারকে কাটমনির সরকার বলেন।আমফানের টাকাও দলের লোকেরা নিজেরাই নিয়েছে ক্ষতিগ্রস্ত লোকেরা কিছুই পাননি বলে তিনি তীব্র সমালোচনা করেন। এই রাজ্যের সরকার জোর করে রাজ্যের কৃষকদের কেন্দ্রীয় সাহায্য নিতে দিচ্ছেন না।নাহলে বছরে ১৪ হাজার করে টাকা কৃষকরা তাদের নিজের ব্যাঙ্ক একাউন্টে পেতেন। ঠিক একইভাবে আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্প থেকেও বঞ্চিত হচ্ছেন বাংলার মানুষ। তাই ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনে এই রাজ্যে পরিবর্তন দরকার বলে তিনি মনে করেন।তিনি বলেন কেন্দ্র ও রাজ্যে একই সরকার থাকলে তবেই প্রকৃত উন্নয়ন সম্ভব তাই আগামী বিধানসভায় বিজেপিকে আনতেই হবে। তাঁর বক্তব্য চলাকালীন মুহুর্মুহু জয় শ্রীরাম ও দিলীপ ঘোষ জিন্দাবাদ ধ্বনি দিচ্ছিলেন কর্মী সমর্থকরা। 



আজকের সভায় যে জনসমাগম হয়েছিল তাতে করে আগামী বিধানসভা ভোটে আশার আলো দেখতেই পারেন জামালপুরের বিজেপি নেতৃত্ব।তবে সভায় যোগ দিতে আসার আগে জৌগ্রামের কাছে দিলীপ ঘোষকে কালো পতাকা দেখান তৃণমূলের কর্মীরা বলে দিলীপ ঘোষ জানান। শুধু তাই নয় তাঁর কনভয় লক্ষ করে পাথর ছোঁড়া হয় বলে তিনি অভিযোগ করেন। একই সঙ্গে বলেন, এই ভাবে ভয় দেখিয়ে বিজেপি কে আটকানো যাবেন। তার প্রমান ২০২১ বিধান সভার ভোটের ফলেই বুঝতে পারা যাবে।

Post a Comment

0 Comments