Scrooling

নন্দীগ্রামে বিজেপি সমর্থক খুনে রিপোর্ট চাইলো কমিশন # ১৮ তম লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল জানা যাবে ৪ জুন

শুভেন্দু অধিকারী'র অনুগামীদের পক্ষ থেকে করোনা সচেতনতায় মাস্ক প্রদান কর্মসূচি


 

শুভেন্দু অধিকারী'র অনুগামীদের পক্ষ থেকে করোনা সচেতনতায় মাস্ক প্রদান কর্মসূচি


ত্যনারায়ন শিকদার ও অতনু ঘোষ, মেমারি : পশ্চিমবঙ্গের একাধিক জেলায় একাধিক জায়গায় ‘আমরা দাদার অনুগামী’ লেখা প্ল্যাকার্ড গলায় ঝুলিয়ে রাখি বন্ধন থেকে স্বাধীনতা দিবস বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে মাস্ক বিতরণ করতে দেখা গিয়েছে শুভেন্দু অধিকারী-অনুগামীদের। বার বার দলীয় কর্মসূচিতে না থেকে সমান্তরাল ভাবে দাদার অনুগামীদের নিজের মতো করে এমন কর্মসূচি নিয়ে দলের মধ্যে যেমন প্রশ্ন উঠেছে। তেমনি এতে তৃণমূলের সঙ্গে শুভেন্দু অধিকারী'র দূরত্ব বাড়ছে কিনা তা নিয়েও জল্পনা ছড়িয়েছে রাজনৈতিক মহলে। কিন্তু শুভেন্দু অধিকারী কোন জল্পনাকে প্রাধান্য না দিয়ে সব সময় বিভিন্ন সামাজিক কাজের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন।

২০০৪ সালে শুভেন্দু অধিকারী যখন লোকসভা ভোটে দাড়িয়েছিলেন। তখন কেউ বা কারা বলেছিল, "জিতলেও পালাবে হারলেও পালাবে।" সে বার শুভেন্দু বাবু জিততে পারেননি। কিন্তু পালিয়ে যাননি।

এরপর ২০০৯ ও ২০১৪ সালে বিপুল ভোটে শুভেন্দুবাবু জয়লাভ করে বিরোধীদের জবাব দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, "আমি মানুষের সেবক। নিজেকে অকৃতদার রেখে মানুষের জন্য কাজ করছি। ভবিষ্যতেও করব।’’

বর্তমানে রাজ্যের মন্ত্রী ও তৃণমূল কংগ্রেসের দক্ষ সংগঠক শুভেন্দু অধিকারী'র অনুগামী যারা 'দাদার অনুগামী' বলে পরিচিত তারা পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলার বিভিন্ন ব্লক থেকে বিভিন্ন বুথে বুথে বিভিন্ন সামাজিক কাজের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াতে দেখা যাচ্ছে। আমফান থেকে শুরু করে বর্তমানে অতিমারি করোনা সংক্রমণের সময় সাধারণ মানুষকে খাদ্য সামগ্রী থেকে শুরু করে দরিদ্র ছাত্রকে সাহায্য করা এবং পথচলতি মানুষদের মাস্ক বিতরণ কর্মসূচী বিভিন্ন ব্লকে প্রতিদিনই পালন করা হচ্ছে।

শনিবার তেমনই এক কর্মসূচিতে মেয়াদি শহরে পথচলতি সাধারণ মানুষদের মাস্ক বিতরণ করল পূর্ব বর্ধমান জেলার মেমারি ১ নম্বর ব্লকের 'দাদার অনুগামীরা'।


এই কর্মসূচিতে যোগদান করেন শুভেন্দু অধিকারী'র অনুগামীদের পক্ষ থেকে সুজন সর্দার, তারক রায়, মাফিক মোহাম্মদ, রূপা দাস সহ দাদার অনুগামী অন্যান্যরা। 

পথচলতি সাধারণ মানুষকে মাস্ক প্রদান করেন এবং সাধারণ মানুষকে মাস্ক ও স্যানিটাইজার ব্যবহার করার অনুরোধ করেন।

 দাদার অনুগামীদের এহেন উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন পথচলতি মানুষ থেকে শুরু করে মেমারি শহরবাসী।