চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # মাধ্যমিকে যুগ্ম প্রথম বর্ধমান সিএমএস হাই স্কুলের রৌনক মন্ডল এবং বাঁকুড়ার রাম হরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের অর্ণব ঘড়াই # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়মাধ্যমিকের পর উচ্চমাধ্যমিকেও তাক লাগালো কাটোয়ার অভীক পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন

সুপার সাইক্লোন উম্ফানের তান্ডবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান বিশাল

ডেস্ক রিপোর্ট : সুপার সাইক্লোন উম্ফানের তান্ডবে পূর্ব মেদিনীপুর, দুই চব্বিশ পরগনা, হাওড়া এবং কলকাতা জুড়ে বিশাল ক্ষতি হয়েছে। দক্ষিণ চব্বিশ পরগণায় ক্ষতির পরিমান সবচেয়ে বেশি বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। অন্তত দশ থেকে বারো জনের মৃত্যু হয়েছে। তবে গাছ ভেঙে পড়েই মৃত্যু হয়েছে। প্রচুর কাঁচা বাড়ি ভেঙে পড়েছে। বৃষ্টির জলে চাষের জমি ভেসে গেছে। সামগ্রিক ক্ষয়ক্ষতির পরিসংখ্যান পেতে কয়েকদিন সময় লাগবে বলে প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে।


এদিকে ঘুর্ণিঝড়ে হুগলি ও পূর্ব বর্ধমান জেলাজুড়ে  বিক্ষিপ্তভাবে বেশকিছু ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া গেছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ঝোড়ো হাওয়া ও বৃষ্টির জন্য কাঁচা বাড়ি  ভেঙে পড়েছে বলে জেলা বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে। এছাড়া  বিভিন্ন জায়গায় বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে পড়ে বিদ্যুৎ পরিষেবা অচল হয়ে পড়েছে। বর্ধমান শহরের পাশাপাশি জামালপুর মেমারি ও কালনা মহকুমা জুড়ে প্রচুর গাছ উপড়ে যাওয়ার সঙ্গে ভেঙেও পড়েছে। কালনা মহকুমায় একজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। মন্তেশ্বর বাজার এলাকায় একটি অশ্বত্থ গাছের ডাল ভেঙে পড়ে দুই মহিলা সহ এক ব্যক্তি জখম হয়েছেন। তাঁদের বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে প্রাথমিক চিকিৎসার পরে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে  পূর্বস্থলীর কালেখাতলা ১ গ্রাম পঞ্চায়েতের ফালেয়া দক্ষিণপাড়া এলাকার এক মহিলা বিদ্যুৎ স্পৃষ্ট হয়ে মারা গেছেন। যদিও এই ঘটনার সঙ্গে ঘুর্ণিঝড়ের কোনো সম্পর্ক নেই বলেই বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে। উম্ফানের প্রভাব অন্যান্য জেলার পাশাপাশি পূর্ব বর্ধমান  জেলাতেও পড়েছে। জেলার বিভিন্ন জায়গায় প্রচুর বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙে পড়েছে। বিদ্যুৎ বিহীন অবস্থায় রয়েছে অনেক গ্রাম। একই সঙ্গে কেবলের তার ছিঁড়ে বর্ধমান শহর সহ বহু এলাকায় টিভি বন্ধ। ঝড়ের পরবর্তী পরিস্থিতির খবর পাচ্ছেন না।
জেলা বিপর্যয় মোকাবিলা দপ্তরের তথ্য অনুযায়ী জেলায় ঝড়ের প্রভাবে মৃত্যুর কোনো খবর নেই। তবে ঝড়ের তান্ডবে ক্ষয়ক্ষতি কতটা হয়েছে বিভিন্ন ব্লক থেকে পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট এলেই বলা যাবে।

Post a Comment

0 Comments