চৈতন্য মহাপ্রভু'র নামে নব নির্মিত তোরণ উদ্বোধন কাটোয়ার দাঁইহাটে

উচ্চ মাধ্যমিকে রাজ্যের সেরা অদিশা দেবশর্মা, দশের মেধা তালিকায় ২৭২ জন # মাধ্যমিকে যুগ্ম প্রথম বর্ধমান সিএমএস হাই স্কুলের রৌনক মন্ডল এবং বাঁকুড়ার রাম হরিপুর রামকৃষ্ণ মিশনের অর্ণব ঘড়াই # আধার কার্ডের ফটোকপির অপব্যবহার রুখতে বিজ্ঞপ্তি জারি # ইউনেস্কো'র সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের তালিকায় পশ্চিমবঙ্গের দুর্গাপুজো # বাংলার চিকিৎসক উজ্জ্বল পোদ্দার স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরার তালিকায়মাধ্যমিকের পর উচ্চমাধ্যমিকেও তাক লাগালো কাটোয়ার অভীক পশ্চিমবঙ্গে কোভিড বিধিনিষেধ প্রত্যাহার #১০০ দিনের কাজের বকেয়া টাকা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলন

ঘুর্ণিঝড় উম্ফানের তান্ডবে দক্ষিণবঙ্গের চার জেলার ক্ষয়ক্ষতির হিসাব কষতে বর্ধমানে কৃষিমন্ত্রীর বৈঠক

ডেস্ক রিপোর্ট : সুপার সাইক্লোন উম্ফানের তান্ডবে গোটা রাজ্যে যে বিশাল ক্ষতি হয়েছে সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না।  কত হাজার কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে সেই পরিসংখ্যান পেতে একটু সময় লাগবে। মঙ্গলবার বর্ধমানে এসেছিলেন রাজ্যের কৃষিমন্ত্রী আশিস বন্দোপাধ্যায়। উম্ফানের প্রভাবে দক্ষিণবঙ্গের চার জেলার কত টাকার ক্ষতি হয়েছে তারই হালহকিকত জানতে বৈঠকে বসেছিলেন। এদিন পূর্ব বর্ধমান জেলার সার্কিট হাউসে চার জেলাকে নিয়ে  বৈঠক করলেন তিনি। উপস্থিত  ছিলেন মুখ্যমন্ত্রীর কৃষি উপদেষ্টা প্রদীপ মজুমদার, রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দপ্তরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ, জেলাশাসক বিজয় ভারতী, জেলা পরিষদের সভাধিপতি শম্পা ধাড়া সহ বাঁকুড়া, বীরভূম এবং পশ্চিম বর্ধমান জেলার প্রশাসনিক আধিকারিকরাও।
কৃষিমন্ত্রী জানিয়েছেন,  উম্ফানের প্রভাবে কতটা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তার পুঙ্খানুপুঙ্খ ক্ষতির হিসাব চেয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। কৃষিমন্ত্রী  জানিয়েছেন, ধান, সব্জি, আম, ফুলের পাশাপাশি পেয়ারা, এমনকি কলাগাছেরও যে ক্ষতি হয়েছে তাও তাঁরা হিসাবের মধ্যেই রাখছেন। তিনি জানিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত তাঁরা মনে করছেন গোটা রাজ্যে কয়েক হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। তাই চার জেলাকে নিয়ে পর্যালোচনা বৈঠকে কিভাবে পূর্ণাঙ্গ হিসাব পাওয়া যাবে তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। বিভিন্ন জেলার হিসাব একত্রিত করে তা মুখ্যমন্ত্রীর হাতে তুলে দেওয়া হবে।
এদিকে পূর্ব বর্ধমান জেলার একাধিক ব্লকের চাষীরা অভিযোগ করতে শুরু করেছেন, তাঁরা শস্যবীমার ক্ষতিপূরণের টাকা পাচ্ছেন না। চাষীদের অভিযোগ, তাঁরা সরকারীভাবে শস্যবীমা করালেও সংশ্লিষ্ট ইনসিওরেন্স কোম্পানী তাঁদের ক্ষতির টাকা দিচ্ছেন না। চাষীদের দাবী, এব্যাপারে বীমা কোম্পানী থেকে তাঁদের বলা হচ্ছে সরকার চাষীদের জন্য যে বীমার প্রিমিয়াম দেবার কথা ছিল গত ২ বছর ধরে তা না দেওয়ায় তাঁরাও সমস্যায় পড়েছেন। এবিষয়ে কৃষিমন্ত্রী আশীষ বন্দোপাধ্যায় জানিয়েছেন, রাজ্য সরকার সমস্ত বীমার প্রিমিয়ামের টাকা বীমা কোম্পানীকে নিয়মমাফিক দিয়ে চলেছে।
পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের সভাধিপতি শম্পা ধাড়া জানিয়েছেন জেলায় ঘুর্ণিঝড়ের প্রভাবে প্রায় ৬০০ কোটি টাকার কাছাকাছি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তিনি গলসী ও আউশগ্রামে বোরো ধানের ক্ষতি খতিয়ে দেখতে এলাকা পরিদর্শনও করেছেন।

Post a Comment

0 Comments